অনলাইন সংস্করণ | ভোলা, শনিবার, ২৩শে অক্টোবর ২০২১ | ৮ই কার্তিক ১৪২৮


বাংলাদেশ সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির দেশ : ধর্ম প্রতিমন্ত্রী


বাংলার কণ্ঠ প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ১২ই অক্টোবর ২০২১ রাত ০১:৩৯

remove_red_eye

২২

 

 

 ভোলায় ধর্মীয় সম্প্রীতি ও সচেতনতামূলক প্রশিক্ষণ কর্মসূচী

 

 

 

হাসনাইন আহমেদ মুন্না :  ধর্ম প্রতিমন্ত্রী মো: ফরিদুল হক খান এমপি বলেছেন, বাংলাদেশ সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির দেশ। বিশ্বে হানাহানি রোধ করে শান্তি ও সমৃদ্ধিসহ সকল জীবের কল্যাণ কামনায় বাঙালির অন্যতম উৎসব শারদীয় দুর্গাৎসব বাংলাদেশে জাতীয় ঐক্যের প্রতীক। এই উৎসব হাজার বছরের ঐতিহ্য ও সংস্কৃতিকে ধারণ ও লালন করে আসছে।

 

প্রতিমন্ত্রী সোমবার দুপুরে জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের সম্মেলন কক্ষে দিনব্যাপী ধর্মীয় সম্প্রীতি ও সচেতনতামূলক প্রশিক্ষণ কর্মসূচীতে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন। জেলা প্রশাসনের আয়োজনে জেলা প্রশাসক মো: তৌফিক-ই-লাহী চৌধুরী অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, আবহমানকাল থেকে এদেশে সকল ধর্মের মানুষ মুক্ত পরিবেশে নিজ নিজ ধর্ম নির্বিঘেœ প্রতিপালন করে আসছে। আমরা বিশ্বাস করি, ধর্ম যার যার উৎসব সবার’। হাজার বছরের সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য এবং মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ধারণ করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয় বৈসম্যহীন সমাজ বিনির্মাণে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে।

তিনি বলেন, হিন্দু ধর্মালম্বীগণও যুগ যুগ ধরে বাংলাদেশের আর্থ সামাজিক উন্নয়নে সমানভাবে অংশগ্রহণ করে আসছেন। সরকার দুর্গা পূজা উপলক্ষ্যে দেশের বিভিন্ন পূজা মন্ডপে আর্থিক অনুদান প্রদানসহ সকল প্রকার সহযোগিতা প্রদান করছে। দূর্গা পূজার প্রধান বৈশিষ্ট হলো অশুভ শক্তিকে প্রতিহত করা এবং সত্য ও ন্যায় প্রতিষ্ঠায় আরাধনা করা।

 

এসময় ধর্মীয় সম্প্রীতি বিনষ্টকারীদের উদ্দেশ্যে প্রতিমন্ত্রী বলেন, যারা মুক্তিযুদ্ধের বিপক্ষে ছিলো এবং বাংলাদেশের অগ্রযাত্রা ব্যাহত করতে চায় তারাই এসব করার অপচেষ্টা করে। তারা কোন ধর্ম, বর্ণ ও গোত্রের নয়। তাদের চিহিৃত করার জন্য সরকার কাজ করছে। আগামী সংসদ র্নিবাচনকে কেন্দ্র করে কেউ যাতে ধর্মীয় সম্প্রীতি নষ্ট করতে না পারে সেজন্য সকলকে ঐক্যবদ্ধ থাকার আহŸান জানান তিনি।

ধর্ম  প্রতিমন্ত্রী  মোঃ ফরিদুল হক খান  বলেছেন, প্রকৃত ধার্মিক ব্যক্তি কখনোই অন্য ধর্মকে  অসম্মান করেন  না। প্রত্যেক ব্যক্তির নিকট তাঁর ধর্ম পবিত্র।  যারা আমাদের মহান মুক্তিযুদ্ধের বিরোধিতা করেছিল, যারা দেশের  বর্তমান উন্নয়ন অগ্রযাত্রায় বিশ্বাস করেনা,  তারাই দেশে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনিষ্ট করে আশান্তি সৃষ্টি করতে চায়। এদের বিষয়ে সবাইকে সজাগ থাকতে হবে।

 

প্রতিমন্ত্রী বলেন, তথ্য যোগাযোগ মাধ্যম ব্যবহারে সবাইকে দায়িত্বশীল হতে হবে। সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহার করে সমাজের দুষ্টু চক্র অনেক সময় ধর্মীয়  উন্মাদনা তৈরি করে। ধর্মীয়  উন্মাদনা তৈরি করে কেউ যেন সমাজে অশান্তি ও বিশৃঙ্খলা  সৃষ্টি করতে না পারে সে বিষয়ে দল, মত, ধর্ম নির্বিশেষে সকল জনগণকে সজাগ ও ঐক্যবদ্ধ থাকতে হবে। সকল ধর্মের  অনুসারীদের কল্যাণে গত ১২ বছরে  যেসব  উন্নয়ন কার্যক্রম বাস্তবায়ন করা হয়েছে তা তুলে ধরে তিনি  বলেন,  এতসব উন্নয়ন কার্যক্রমের বিষয়ে জানলে সব সম্প্রদায়ের মানুষই আনন্দিত হবেন।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, সরকার বৃহত্তর ধর্মীয় জনগোষ্ঠী মুসলমানদের কল্যাণে  প্রায় ৯ হাজার কোটি টাকা ব্যয়ে সারা দেশে ৫৬০ টি মডেল মসজিদ ও ইসলামি সাংস্কৃতিক কেন্দ্র প্রতিষ্ঠা করছে।  বর্তমান সরকার হিন্দু ধর্মীয় কল্যাণ ট্রাস্টের স্থায়ী মূলধন ২১ কোটি টাকা থেকে বাড়িয়ে ১০০ কোটি টাকায় উন্নীত করেছে। এই প্রথম “সমগ্র দেশে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের মন্দির ও ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানের উন্নয়ন ও সংস্কার” শীর্ষক  প্রকল্পের মাধ্যমে  ২৬২ কোটি ৯৫ লক্ষ টাকা ব্যয়ে সারাদেশে মোট ২৩৫১টি মন্দির ও ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানের সংস্কার কাজ করা হচ্ছে। ইতোমধ্যে ৫৪৭টি মন্দিরের নির্মাণ কাজ ১০০% সম্পন্ন হয়েছে।

 

প্রতিমন্ত্রী আরও  বলেন, ২৩ কোটি টাকা ব্যয়ে ৩টি কর্মসূচির অধীনে শ্রী শ্রী ঢাকেশ্বরী জাতীয় মন্দির ও শ্রী শ্রী সিদ্ধেশ্বরী মন্দির, ঢাকাসহ চট্টগ্রাম, গোপালগঞ্জ ও হবিগঞ্জ জেলায় মোট ১৯৮টি মঠ/মন্দির/শ্মশান সংস্কারের কাজ সম্পন্ন হয়েছে। বর্তমানে ঢাকাশ্বেরী মন্দিরের উন্নয়নে আরও ১০ কোটি টাকার উন্নয়ন ও সংস্কার কাজ চলমান রয়েছে।

 

অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) মামুন আল ফারুকের সঞ্চালনায় প্রশিক্ষণ কর্মসূচীতে বক্তব্য দেন, জেলা পুলিশ সুপার সরকার মো: কায়সার, জেলা পরিষদ প্যানেল চেয়ারম্যান নজরুল ইসলাম গোলদার, বোরহানউদিদ্দন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো: সাইফুর রহমান, ভোলা প্রেসক্লাব সভাপতি এম হাবিবুর রহমান, জেলা ইমাম সমিতির সভাপতি মাওলানা মীর মো: বেলায়েত হোসেন, জেলা ইমান আকিদা সংরক্ষণ কমিটির সাধারণ সম্পাদক মাওলানা তাজুদ্দিন , মুসলিম ঐক্য পরিষদের সম্পাদক উপধ্যক্ষ মোবাশ্বের নাঈম,  সুজনের সভাপতি মোবাশ্বের উল্লাহ চৌধুরী,  ইসলামী আন্দোলন নেতা মাওলানা আতাহার উদ্দিন মনতাজী ,সাবেক অধ্যক্ষ দুলাল চন্দ্র ঘোষ,জেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক অসীম কুমার সাহা, জেলা হিন্দু বৌদ্ধ খ্রীস্টান ঐক্য পরিষদের আহŸায়ক অবিনাশ নন্দী প্রমূখ। বিকালে প্রতিমন্ত্রী ভোলায়  শারদীয় দুর্গাপূজা মন্ডপ পরিদশন করেন।

এছাড়া সকাল ১১টায় ভোলা সদর উপজেলার ব্যাংকের হাট মডেল মসজিদের কনফারেন্স রুমে দিনব্যাপী ধর্মীয় সম্প্রতী ও সচেতনতা মূলক প্রশিক্ষণ কর্মশালায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে উদ্বোধন করেন ধর্ম প্রতিমন্ত্রী ফরিদুল হক খান এমপি । 

দিনব্যাপী প্রশিক্ষণে জেলার ধর্মীয় সংগঠনের নেতৃবৃন্দ, ইমাম, জনপ্রতিনিধি, স্কুল শিক্ষক, সাংবাদিকসহ বিভিন্ন সামাজিক ও রাজনৈতিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ অংশ গ্রহণ করেন।

 

 

 

 





আরও...