অনলাইন সংস্করণ | ভোলা, শনিবার, ২৪শে জুলাই ২০২১ | ৯ই শ্রাবণ ১৪২৮


ভোলায় এবার আলাউদ্দিনের বিরুদ্ধে স্কুল শিক্ষকের জমি দখলের অভিযোগ


বাংলার কণ্ঠ প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ৮ই জুলাই ২০২১ রাত ০৯:৩০

remove_red_eye

১০১



পুলিশের কাছে অভিযোগ  করেও কোন প্রতিকার  পায়নি শিক্ষক পরিবার


বাংলার কণ্ঠ প্রতিবেদক : ভোলা-বরিশাল রুটের স্পীডবোট নিয়ন্ত্রক বির্তকিত আলাউদ্দিনের বিরুদ্ধে এক স্কুল শিক্ষকের জমি দখলের অভিযোগ উঠেছে  ।  বৃহস্পতিবার দুপুরে  ভোলা প্রেসক্লাবে এক সংসাদ সম্মেলন করে ভোলা-বরিশাল রুটের ভেদুরিয়া স্পীডবোট নিয়ন্ত্রক আলাউদ্দিনকে ভুমিদস্যু উল্লেখ করে ভোলা শহরের এ রব মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক আব্দুল মান্নান ও তার স্ত্রী নাজমা বেগম তাদের জমি জোরপূর্বক দখল করে রেখেছে বলে অভিযোগ করেন। পুলিশের কাছে অভিযোগ করেও ভূক্তভোগী পরিবার পাচ্ছে না কোন প্রতিকার। এদিকে সম্প্রতি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আলাউদ্দিনে একটি ইয়াবা খাওয়ার একটি দৃশ্য ছড়িয়ে পড়লে তার টক অবদ্যা টাউনে পরিনত হলে তার বিরুদ্ধে একর পর এক অভিযোগ বের হতে শুরু হয়।
লিখিত অভিযোগে শিক্ষক আব্দুল মান্নান ও তার স্ত্রী নাজমা বেগম জানান, তিনি ১৯৯৮ সালে ভেদুরিয়া লঞ্চঘাটের পাশে এক একর ১৩ শতাংশ জমি ক্রয় করেন। আলাউদ্দিন ও তার সহযোগী রফিকুল ইসলাম ওই শিক্ষকের দুটি দোকান ভিটি দখল করেন।  ভাড়া দেয়ার কথা থাকলেও  তা না দিয়ে উল্টো তাকে প্রাণ নাশের হুমকী দেয়। তার স্ত্রীকে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে। এ ব্যাপারে ২০১৬ সনের ৩০ আগষ্ট তারিখে পুলিশ সুপার বরা বলে তিনি লিখিত আবেদন করেন। এতে করে তখন ক্ষিপ্ত হয়ে নেশাগ্রস্ত অবস্থায় উল্টো জমির মালিক শিক্ষক মান্নান ও তার স্ত্রীকে মারতে আসে। এ ঘটনায় তার পর দিন ভোলা থানায় একটি জিডি করা হয়। যার নং ১৫০৫,তারিখ ৩১.৫.১৬ইং। কিন্তু এর কোন সু বিচার তখন পান নি। এর পর বরিশার বিভাগের উপ মহা  পুলিশ পরিদর্শক বরাবরে অভিযোগ দিলেও সেখানের কোন ফল হয়নি। শিক্ষক পরিবারটি সরকারের উর্ধতন কর্তৃপক্ষের কাছে তাদের জমি উদ্ধারের জন্য আকুল আবেদন করেন।
এদিকে আলাউদ্দিন ভোলা-বরিশাল রুটের শতাধিক স্পিডবোট মালিক সমিতির সভাপতি সেজে নিজেই ওই এল্কাায় রামরাজত্ব শুরু করে। তার অত্যাচারে অতিষ্ট হয়ে গত কয়েক দিন ধরে ওই ঘাটের স্পিডবোট মালিক ও শ্রমিকরা আলাউদ্দিনের বিচার দাবিতে বিক্ষোভ করেন।
সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন, তার জমির এক সময়ের বর্গা চাষি সালেহ আহমেদ , তার ছেলে মোক্তার হোসেন । এদিকে জোর করে জমি দখল বা নির্যাতন চালানোর বিষয় অস্বীকার করেন মোঃ আলাউদ্দিন ।  তার দাবি এই সব তার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রমূলক তার প্রতিপক্ষরা করাচ্ছে। ওই জমির ভাড়া পরিশোধের দায়িত্ব দেয়া  ছিল সোহেলের উপর। কিন্তু শিক্ষক মন্নান ভাড়া নিতে আসেন নি।