অনলাইন সংস্করণ | ভোলা, শনিবার, ২৪শে জুলাই ২০২১ | ৯ই শ্রাবণ ১৪২৮


ভোলায় রাতের আঁধারে ঘর থেকে বের করে দিয়ে জবর দখল


বাংলার কণ্ঠ প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ২৭শে জুন ২০২১ রাত ১১:২৯

remove_red_eye

৬০

প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা  করছেন অসহায় এক নারী

বাংলার কণ্ঠ প্রতিবেদক : ভোলা সদর উপজেলার ভেলুমিয়া ইউনিয়নের চর রমেশ মাঝিরহাট এলাকায় রানু বেগম নামের এক অসহায় নারীকে তার সৎভাই মারধর করে রাতের আঁধারে বসতঘর থেকে বের করে দিয়ে জবর দখল করেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করছেন রানু বেগম।
ভোলা সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধিন রানু বেগম অভিযোগ করেন, তার ২৮ শতাংশ জমিসহ বাড়িঘর জবর দখলের উদ্দেশ্যে আমির হোসেন নামে রানু বেগমের এক সৎভাই বৃহস্পতিবার তাকে মারধর করে ৪০ বছর ধরে দখলে থাকা বসতঘর থেকে বের করে দিয়েছে। বিষয়টি তিনি ভেলুমিয়া পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রে জানালে পুলিশ ওই রাতেই ঘটনাস্থলে গিয়ে এর সত্যতা পায় এবং আমির হোসেনের লোকজনকে ঘর থেকে নেমে যেতে বলে। কিন্তু আমির হোসেন ঘর থেকে না নেমে উল্টো রানু বেগমের বিরুদ্ধে ভোলা থানায় অভিযোগ দায়ের করেন। এ বিষয়ে স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ শালিশ বৈঠকে মিমাংশ করার চেষ্টা করে ব্যর্থ হন। পুলিশও আমির হোসেনকে ঘর থেকে নামাতে পারেনি। এদিকে আমির হোসেন ও তার লোকজন শনিবার আবারও রানু বেগমকে  বেদম মারধর করে গুরুতর আহত করে রাস্তায় ফেলে রাখে। পরে স্থানীয়রা রানু বেগমকে উদ্ধার করে শনিবার রাতেই ভোলা সদর হাসপাতালে ভর্তি করে। অপরদিকে অভিযুক্ত আমির হোসেন তার পরিবারের নারীদেরকে ভোলা সদর হাসপাতালে ভর্তি করে রানু বেগমের নামে মামলা দেয়ার পায়তারা করছে বলেও অভিযোগ করেছেন রানু বেগম।
ঘটনাস্থল পরিদর্শনকারী পুলিশ কর্মকর্তা ইনজামুল হোসেন গণমাধ্যমকে জানান, বৃহস্পতিবার রাতে রানু বেগমের অভিযোগ পেয়ে তিনি ঘটনাস্থলে গিয়ে রানু বেগমকে জোর করে তার বসতঘর থেকে নামিয়ে আমির হোসেন দখল করেছে মর্মে সত্যতা পেয়েছেন। আমির হোসেনের দুই মেয়ে তখন রানু বেগমের ঘরে অবস্থান করছিল। রানু বেগমের ঘর ছেড়ে দিতে বললে আমির হোসেন স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ এবং পুলিশের কথা অমান্য করেন। এক পর্যায়ে আমির হোসেন পুলিশকে জানান, তার থাকার মত জয়াগা নেই তাই বোন রানু বেগমের ঘরে আপাতত আশ্রয় নিয়েছেন। পুলিশ কর্মকর্তা আরও জানান, বিষয়টি নিয়ে স্থানীয়ভাবে ফয়সালার চেষ্টা করা হয়েছিল। পরবর্তীতে ভোলা থানায় বসার কথা রয়েছে। তবে রানু বেগমকে মামলা দেয়ার পরামর্শ দেয়া হয়েছিল। তিনি মামলা না দেয়ায় আনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা সম্ভব হচ্ছে না।
রানু বেগম জানান, তার স্বামী ঢাকার শাহ আলী মাজারে থাকেন। তার ছেলে সন্তান কিংবা আপনজন বলতে এখানে কেউ নেই। এই সুযোগে তার সৎভাই আমির হোসেন তার উপর অত্যাচার নির্যাতন করে তার বাড়িঘর কেড়ে নিতে চাচ্ছে। এ ব্যপারে তিনি প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করছেন।