অনলাইন সংস্করণ | ভোলা, শুক্রবার, ১৮ই জুন ২০২১ | ৪ঠা আষাঢ় ১৪২৮


ভোলায় প্রজনন স্বাস্থ্য সেবা নিশ্চিত করণে জেলা প্রশাসনের সাথে কিশোর-কিশোরীদের সভা


বাংলার কণ্ঠ প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ৩রা জুন ২০২১ রাত ১০:৪২

remove_red_eye

৫৬



বাংলার কণ্ঠ প্রতিবেদক:  যৌন ও প্রজনন স্বাস্থ্য সেবা সঠিক ভাবে নিশ্চিত করার লক্ষ্যে নিয়ে ও কমিউনিটি স্কোর কার্ড বাস্তবায়নে ভোলায় জেলা প্রশাসনের সাথে কিশোর-কিশোরীদের দ্বি বার্ষিক পরামর্শ সভা অনুষ্ঠিত হয়ে। বৃহস্পতিবার (৩ জুন) ভোলায়  ভোলা জেলা প্রশাসক সম্মেলন কক্ষে এই সভা অনুষ্ঠিত হয়। ইয়েস  বাংলাদেশ এর আয়োজনে  সভায় প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন ভোলা জেলা প্রশাসক মো: তৌফিক ই-লাহী- চৌধুরী।
এসময় তিনি বলেন, বাংলাদেশ সরকার যৌন ও প্রজনন স্বাস্থ্য পরিচর্যা সেবায় সার্বজনীন অধিকার নিশ্চিত করতে ও একই সাথে জেন্ডার সমতা আনায়নে নিরলস  ভাবে কাজ করে যাচ্ছেন। ইতিমধ্যে টেকসই উন্নয়ণ লক্ষ্যেমাত্রা অর্জনের ক্ষেত্রে বাংলাদেশ অনেক খানি অগ্রসর হয়েছে বলে জানান।
এসময়  তিনি আরো বলেন, দেশের মোট জনসংখ্যার একটা বড় অংশ জুড়ে কিশোর- কিশোরী। শৈশব ও বার্ধক্যের তুলনায় এই কিশোর-কিশোরীরা রোগে কম ভুগলেও  তারা শারীরিক ও মানসিক ভাবে ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় থাকেন। তাই কিশোর-কিশোরীদের সচেতনতার পাশাপাশি সামাজিক সচেতনতা এবং দক্ষ স্বাস্থ্য সেবাদানকারী প্রয়োজন।
 জেলা প্রশাসক আরো বলেন, আজকের কিশোর- কিশোরী আগামী দিনের ভবিষ্যৎ,যারা কিনা আগামীতে দেশ গড়তে নেতৃত্ব দিয়ে থাকবেন। তাদেরকে যুগোপযোগী এবং দক্ষ মানুষ হিসাবে গড়ে তুলতে আমাদের সকলরে সম্মলিত প্রচেষ্টা অব্যহত রাখতে হবে। তাই কিশোর- কিশোরীদের স্বাস্থ্য সেবা কেন্দ্র গুলোতে  সেবার মান বৃদ্ধি করতে হবে। একই সাথে তাদের সুরক্ষা নিশ্চিত করতে হবে বলে জানান।
তিনি আরো বলেন, উপূকলীয় জেলা ভোলার কিশোর-কিশোরীরা যেন নিয়মিত স্বাস্থ সেবা কেন্দ্রে গুলোতে সেবা পায় তার জন্য সব ধরণের ব্যবস্থা গ্রহন করবেন। একই সাথে স্কুলে ওয়াশ বøক তৈরি,ন্যাপকিন বিতরন,আয়রন টেবলেট বিতরণের মতো কর্মসূচি নেয়া হবে। এছাড়া কিশোর-কিশোরী যাতে পর্যাপ্ত কাউন্সিলিং পেয়ে বড় হয়ে উঠে সেজন্য স্বাস্থ্য ও শিক্ষা বিভাগকে সচেষ্ট থাকার আহবান জানান। এসময় তিনি প্রজনন স্বাস্থ্য সেবা নিশ্চিত করণের লক্ষ্যে সরকারের পাশাপাশি এনজিও,আইএনজিও দের এগিয়ে আসার আহবান জানান।  
সভায় বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন জেলা প্রশাসনের স্থানীয় সরকার বিভাগের উপ-পরিচালক মামুন আল ফারুক,পরিবার পরিবার পরিকল্পনা বিভাগের উপ-পরিচালক মাহামুদুল হক আযাদ, ভোলা সদর হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও) ডা. নিরুপম সরকার সোহাগ, জেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসের শিক্ষা গবেষণা অফিসার  মুহাম্মদ নুরে আলম সিদ্দিকী।
এসময় আরো বক্তব্য রাখেন ভোলা সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষিকা শারমিন জাহান শ্যামলী,ব্যাংকের হাট কো-অপরেটিভ কলেজের প্রভাষক  ইভান তালুকদার,কোস্ট ট্রাস্ট এনজিও প্রতিনিধি মিজানুর রহমান,এফডবিবিøউভি নাঈমা বেগম, সাংবাদিক জুয়েল সাহ বিকাশ, ইকরামুল আলম, কিশোর- কিশোরীদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন- এনসিটিএফ ভলেন্টিয়ার রিমা আক্তার সিমু,গোপাল চন্দ্র দে,সাবরিনা, তাসনিম আজিজ রিমি প্রমুখ । অনুষ্ঠানের সঞ্চলনা করেন চ্যানেল- ২৪ এর  সাংবাদিক আদিল হোসেন তপু ।  
 এসময় কিশোর-কিশোরীরা বলেন, মাসিক কালীন সময়ে আমাদের উপকূলে কিশোরীরা পরিবার থেকে তেমন কোন সহযোগীতা পায়না। ফলে অনেক ক্ষেত্রে মেয়েদের জীবন হুমকীর মুখে পরে। তাই এসময় পরিবারের সহযোগীতা বেশি প্রয়োজন। তাই মা-বাবাকে সচেতন করতে হবে। স্যানেটারী প্যাডের দাম বেশি হওয়াতে এখানকার মেয়েরা অনেক সময় অস্বাস্থ্যকর কাপড় ব্যবহার করে তাই জরায়ু ক্যান্সার এর ঝুঁকি থাকেন। আর ছেলেরা বয়সন্ধি কালের নানা সমস্যার কথা জানাতে চাইলেও কোন পরিবেশ পায়না বলে। তাই সেবার পরিবেশ যেমন ভালো করার কথা বলেন তেমনি কিশোর-কিশোরীদের বন্ধু সুলভ আচরণের কথা জানান। এসময় তারা সরকারের বিভিন্ন কৌশর বান্ধব স্বাস্থ্য সেবা কেন্দ্র গুলোতে কিশোর-কিশোরীদের সেবার মান বৃদ্ধি, পর্যাপ্ত আইরন টেবলেটও স্যানেটারী ন্যাপকিন  সরবরাহ,স্কুল,মাদ্রাসা,কলেজে  ও বিভিন্ন গ্রামে নিয়মিত প্রজনন স্বাস্থ্য সেবার ক্যাম্পেইন করার কথা বলেন।  
 প্ল্যান ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ- একটি গতিশীল  এবং অন্তভর্’ক্ত সমাজ গঠনের মাধ্যমে বাংলাদেশ যুবদের,বিশেষ করে মেয়েদের অংশ গ্রহন, সুরক্ষা এবং যৌন প্রজনন স্বাস্থ্যের অধিকার  এগিয়ে নেয়াল লক্ষ্যে ওয়াই-মুভস প্রকল্প কার্যক্রম পরিচালনা করছে। এর আগে কৈশোর-বান্ধব স্বাস্থ্য সেবা নিতে আসা  কিশোর-কিশোরীদের স্কোর কার্ড নিয়ে সার্ভে করা হয়।  কিশোর- কিশোরীদের নিয়ে স্বস্থ্য বিভাগের কর্মকর্তা সহ বিভিন্ন শ্রেনী পেশার প্রতিনিধিদের উপস্থিত তিতে ইন্টারজেনারেশন ডায়লগ করা হয়।