অনলাইন সংস্করণ | ভোলা, শুক্রবার, ৩০শে অক্টোবর ২০২০ | ১৫ই কার্তিক ১৪২৭


ভোলায় নিষেধাজ্ঞা অমান্য করায় ৩৪ জেলের জেল জরিমানা


বাংলার কণ্ঠ প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ১৬ই অক্টোবর ২০২০ রাত ১০:২৯

remove_red_eye

৯১






২৫ হাজার মিটার জাল ও মাছ জব্দ


হাসনাইন আহমেদ মুন্না :   নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে মা ইলিশ শিকারের দায়ে জেলার সদর , বোরহানউদ্দিন, লালমোহন ও চরফ্যাসন উপজেলায় ৩৪ জেলেকে জেল-জরিমানা দিয়েছে ভ্রাম্যমাণ আদালত। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা থেকে শুক্রবার সন্ধ্যা পর্যন্ত মেঘনা এবং তেঁতুলিয়া নদীতে অভিযান চালিয়ে এসব জেলেদেরকে আটক করা হয়। শুক্রবার সকালে এদের মধ্যে ১২ জনকে ১ বছর করে জেল ও ২১ জনকে ৫ হাজার টাকা করে  ১ লক্ষ ৫ হাজার  টাকা জরিমানা করা হয়। এসময় ২৫ হাজার মিটার কারেন্ট জাল ও বেশ কিছু মাছ জব্দ করা হয়েছে।


সদর উপজেলা সিনিয়র মৎস্য কর্মকর্তা মো: আসাদুজ্জামান বলেন, বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা থেকে শুক্রবার ভোর পর্যন্ত  উপজেলার মাঝের চর ও রাজাপুর এলাকার মেঘনা নদীতে অভিযান চালিয়ে ৮ জেলেকে আটক করা হয়। শুক্রবার সকালে ভ্রাম্যমাণ আদালতের বিচারক ও সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো: মিজানুর রহমান আটক ৪ জনকে ১ বছর করে কারাদন্ড ও ৪ জনকে ৫ হাজার টাকা করে ২০ হাজার টাকা জরিমানা প্রদান করেন।
অপরদিকে বোরহানউদ্দিন উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা নাজমুস সালেহিন জানান, মেঘনা ও তেঁতুলিয়া নদী থেকে ১৪ জেলেকে আটক করে আইন শৃংখলারক্ষা বাহানী। পরে ভ্রম্যমাণ আদালত’র বিচারক ও উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) শোয়ায়িব আহমাদ ৮ জনকে ১ বছর করে জেল এবং ১ জনকে ৫ হাজার টাকা জরিমানা করেন।এছাড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো: সাইফুর রহমান ৫ জেলেকে  ১ বছর করে দন্ডাদেশ প্রদান করেন।
লালমোহন প্রতিনিধি ওমর রায়হান অন্তর জানান, বৃহস্পতিবার রাত থেকে শুক্রবার সকাল পর্যন্ত লালমোহনের তেঁতুলিয়া নদীতে অভিযান চালানো হয়। ভোরের দিকে নদীতে মাছ ধরা অবস্থায় জেলে ইউনুছ ও এক শিশুসহ একটি নৌকা আটক করা হয়। এ সময় নৌকায় থাকা ১৫ হাজার মিটার জালও জব্দ করা হয়।  আটককৃত জেলে মোঃ ইউনুছকে ভ্রাম্যমান আদালতে ৫ হাজার টাকা জরিমানা করেন ম্যাজিষ্ট্রেট সালেহ আহমেদ। সাথে থাকা শিশুকে মুছলেকায় ছেড়ে দিয়ে উদ্ধারকৃত জাল পুড়িয়ে ফেলা হয়েছে । এ ছাড়া মনপুরা ও বোরহানউদ্দিন উপজেলা থেকে প্রায় ১০ হাজার মিটার মাছ ধরার জাল জব্দ করা হয়। যা পরে পুড়িয়ে ধ্বংশ করা হয়। এদিকে জেলা মৎস্য কর্মকর্তা এস এম আজহারুল ইসলাম জানান, শুক্রবার সন্ধ্যায় চরফ্যাসন উপজেলার তেঁতুলিয়া নদী থেকে মা ইলিশ শিকারের দায়ে ১০ জেলেকে আটক করে আইন শৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা। পরে ভ্রাম্যমান আদালতের বিচারক চরফ্যাসন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট মো: রুহুল আমিন আটককৃত জেলেদেও ৫ হাজার টাকা করে জরিমানা প্রদান করেন।
উল্লেখ্য, ইলিশের প্রধান প্রজনন মৌসম নির্বিঘœ করার জন্য ১৪ অক্টোবর থেকে ৪ নভেম্বর পর্যন্ত ইলিশ শিকার, পরিবহন, বিক্রি, প্রদর্শন ও মজুদ নিষিদ্ধ করেছে সরকার। আইন অমান্য করলে কমপক্ষে ১ বছর হতে সর্বোচ্চ ২ বছরের সশ্রম কারান্ড অথবা ৫ হাজার টাকা জরিমানা অথবা উভয় দন্ডে দন্ডিত হবে।