অনলাইন সংস্করণ | ভোলা, মঙ্গলবার, ২৩শে এপ্রিল ২০২৪ | ৯ই বৈশাখ ১৪৩১


রোজার মধ্যে এবার বাড়ছে চালের দাম


বাংলার কণ্ঠ ডেস্ক

প্রকাশিত: ১৫ই মার্চ ২০২৪ বিকাল ০৪:৪৯

remove_red_eye

৩০

পবিত্র রমজানের প্রয়োজনীয় পণ্য কিনতে হিমশিম খাচ্ছেন ক্রেতারা। বাজারে কোনো সুখবর নেই। নানান ধরনের ঘোষণা থাকলেও তার নেই বাস্তবায়ন। এরই মধ্যে আবার বাড়তে শুরু করেছে চালের দাম।

যদিও বাজারে আমন ধানের চালের পর্যাপ্ত সরবরাহ রয়েছে, তারপরও বিআর-২৮, পাইজাম, গুটি ও মিনিকেট চালের দাম গত তিনদিনের ব্যবধানে কেজিতে দুই টাকা করে বেড়েছে।

শুক্রবার (১৫ মার্চ) রাজধানীর রামপুরা, হাজীপাড়া, মালিবাগ ও সেগুনবাগিচা বাজার ঘুরে দেখা গেছে এ চিত্র।

বিক্রেতারা জানিয়েছেন, এর আগে ভোটের পরপর চালের দাম কেজিতে ৬ টাকা পর্যন্ত বেড়েছিল। এরপর কিছুটা কমে মাস দেড়েক স্থিতিশীল ছিল। এখন আবার মিল পর্যায়ে প্রতি বস্তা চালের দাম ৫০ থেকে ১০০ টাকা বেড়েছে।

পাইকারি বিক্রেতাদের দাবি, তাদের কেনা দাম বেশি। অন্যদিকে মিলারদের দাবি, উৎপাদন খরচ বেশি হওয়ায় ধানের দাম বেড়েছে।

রামপুরা বাজারের বিসমিল্লাহ রাইস এজেন্সির জসিম উদ্দিন বলেন, গুটি স্বর্ণা ২৩৫০ টাকা থেকে ২৪০০ টাকা হয়েছে প্রতি বস্তা। এ চাল আগে খুচরা ৫০ টাকায় বিক্রি করা যেত, এখন ৫১-৫২ টাকা বিক্রি করতে হচ্ছে। বস্তা নিলে ৫১ টাকায় দেওয়া যায়, খুচরায় ৫২ টাকার নিচে হয় না।

তিনি বলেন, সবচেয়ে বেশি বেড়েছে মিনিকেট চালের দাম। প্রতি বস্তায় ১০০ টাকা। মিনিকেট ২৫ কেজির বস্তা আগে ১৬০০ টাকা ছিল, এখন ১৭০০ টাকা হয়েছে। সে কারণে খুচরা ৭০ টাকা বিক্রি হচ্ছে, যা ৬৮ টাকা ছিল। আর ভালো মানের মিনিকেটের দাম কেজিপ্রতি আরও দুই টাকা বেশি।

একইভাবে পাইজাম চালের দাম ৫১-৫২ থেকে বেড়ে প্রতিকেজি ৫৩-৫৪ টাকা বিক্রি হচ্ছে বলে জানান তিনি।

হাজীপাড়া এলাকায় কুমিল্লা রাইস এজেন্সির কর্ণধার মহসীন বলেন, হঠাৎ করে কেন চালের দাম বেড়ে গেলো তার কোনো উত্তর দিতে পারছেন না মিলমালিকরা। আমরা ভেবেছিলাম রোজার আগে সরকার চাল আমদানি শুল্ক কমিয়েছে, দাম নিম্নমুখী থাকবে। কিন্তু দাম বেড়ে যাবে সেটা ভাবিনি।

তিনি বলেন, গত ৭ জানুয়ারি নির্বাচনের পর চালের দাম কেন অস্বাভাবিক বেড়ে গিয়েছিল তা এখনো খুঁজে পাননি চালের পাইকাররা। এবারও তেমন একটি অবস্থার শুরু হলো।

নবী রাইস এজেন্সি সাধারণত কুষ্টিয়া, চাঁপাইনবাবগঞ্জ, নওগাঁ, শেরপুর ও দিনাজপুর- এ পাঁচ জেলা থেকে চাল সংগ্রহ করে। প্রতিষ্ঠানটির কর্ণধার ফারুক হোসেন বলেন, সবখানে চালের দাম ৫০ থেকে ১০০ টাকা বাড়িয়েছেন মিলমালিকরা।

তিনি বলেন, আমরা সিন্ডিকেটের শিকার হয়েছি কি না জানি না। কিন্তু আমাদের নিয়মিত গ্রাহকরা হঠাৎ দাম বৃদ্ধির জন্য আমাদের দোষারোপ করছেন। তবে আমরা বেশি দামে কিনছি বলেই বেশি দামে বিক্রি করছি।

যেসব মিলার বেশি দাম নিচ্ছে তাদের কঠোর মনিটরিং ও জবাবদিহি নিশ্চিত করার জন্য কর্তৃপক্ষের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন কয়েকজন খুচরাও পাইকারি চাল ব্যবসায়ী।

এটি নিম্ন আয়ের মানুষের ওপর আরও চাপ তৈরি করেছে এ বাড়তি চালের দাম। কারণ এরই মধ্যে রোজার পণ্যগুলো বাড়তি দামে তাদের নাভিশ্বাস উঠেছে। পাশাপাশি এক বছরেরও বেশি সময় ধরে জীবনযাত্রার ক্রমবর্ধমান ব্যয়ের সঙ্গে লড়াই করছেন তারা।

সেগুনবাগিচা বাজারে খালিদ হোসেন নামের একজন ক্রেতা বলেন, কদিন আগেই টিভিতে বাণিজ্যমন্ত্রীর মুখে শুনলাম, চালের দাম কম আছে। এখন সেটাও বেড়ে গেলো। আমার মনে হয়, রোজায় চালের চাহিদা কম থাকে। যে কারণে দাম বাড়ার কোনো যৌক্তিক কারণ নাই। এটি বাজারের একটি চিরাচরিত প্রবণতা হয়ে গেছে। সবকিছুর দাম বাড়ছে, চালের ব্যবসায়ীরা আবার পিছিয়ে থাকবেন কেন? তাই তারাও দাম বাড়িয়ে দিয়েছেন।

 

সুত্র জাগো