অনলাইন সংস্করণ | ভোলা, মঙ্গলবার, ১৮ই জানুয়ারী ২০২২ | ৫ই মাঘ ১৪২৮


মানুষের ভোটাধিকার হরনকারী মেজর হাফিজের মুখে ভোটাধিকারের কথা মানায় না: এমপি শাওন


লালমোহন প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ৯ই জানুয়ারী ২০২২ রাত ০৯:০৪

remove_red_eye

২১


লালমোহন প্রতিনিধি : ভোলা-৩ আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ¦ নূরুন্নবী চৌধুরী শাওন বলেছেন, যারা ২০০১ সালের নির্বাচনে লালমোহন-তজুমদ্দিনের মানুষের ভোটাধিকার হরণের উদ্দেশ্য ব্যালট বাক্স লুট করতে গিয়ে মানুষ হত্যা করেছিল, নির্বাচন পরবর্তী লালমোহন-তজুমদ্দিনে সন্ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করেছিল, সেই মেজর হাফিজ উদ্দিন আহমেদের মখে গণতন্ত্রের কথা মানায় না। এমপি শাওন বলেন, মেজর হাফিজের নির্দেশে তার সন্ত্রাসী বাহিনীর হাত থেকে শিশু রীতা রানী, উজলা ও পঙ্গু শেফালী তাঁদের সভ্রম রক্ষা করতে পারেনি। ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে চাঁদা উঠিয়েছিল তার ক্যাডাররা। এমন গণতন্ত্র হত্যাকারী, ভোটাধিকার হরণকারী মেজর হাফিজের মুখে গণতন্ত্র ও ভোটাধিকারের কথা লজ্জ্বাজনক বলে মন্তব্য করেছেন এমপি শাওন।
শনিবার রাতে বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উদযাপন উপলক্ষে উপজেলা ও পৌরসভা আওয়ামীলীগের বর্ধিত সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ মন্তব্য করেন তিনি। এমপি শাওন আরও বলেন, যারা মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস বিকৃত করে প্রজন্ম থেকে প্রজন্মকে বিভ্রান্ত করেছে, মিথ্যাচারের মধ্যে যাদের জন্ম, তারাই আবার প্রেস ব্রিফিং করে মিথ্যাচার করে। এটা বিএনপি'র চিরাচরিত অভ্যাস।
লালমোহনের স্থানীয় নির্বাচন নিয়ে মেজর হাফিজের মন্তব্য ও মিথ্যাচার উল্লেখ করে এমপি শাওন বলেন, লালমোহন উপজেলা ও পৌরসভা নির্বাচনে প্রার্থী দিয়েছিল বিএনপি। ২০০১ সালে মেজর হাফিজের অন্যায় অত্যাচার ও জুলুমে অতিষ্ঠ মানুষ কখনও তার দল ও তাদের প্রার্থীকে ভোট দেবেনা। তাই তারা কম ভোট পেয়েছে। প্রেস ব্রিফিং করে মেজর হাফিজ মিথ্যাচার করেছে অভিযোগ করে তার বক্তব্যের তীব্র নিন্দা জানিয়েছেন এমপি নুরুন্নবী চৌধুরী শাওন।
উল্লেখ্য, গতকাল শুক্রবার জাতীয় প্রেসক্লাবে বাংলাদেশ লেবার পার্টির উদ্যোগে ‘৭ জানুয়ারি ফেলানী হত্যা দিবস’ উপলক্ষে আগ্রাসনবিরোধী কনভেনশনে বক্তব্য রাখেন মেজর অবঃ হাফিজ উদ্দিন আহমদ। এসময় দেশে গণতন্ত্র নেই, ভোটাধিকার হরণ করা, ইউপি নির্বাচনে ভোট কারচুপিসহ সরকারের বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ তুলে ধরেছিলেন তিনি।
এমপি শাওন বার সকালে লালমোহন হাজী নুরুল ইসলাম ইনস্টিটিউটে কারিগরি শিক্ষার্থীদের মাঝে সনদপত্র বিতরণ করেন।