অনলাইন সংস্করণ | ভোলা, শনিবার, ২৩শে অক্টোবর ২০২১ | ৮ই কার্তিক ১৪২৮


চরফ্যাশনে বিয়ে বাড়িতে যুবতীর শ্লীলতাহানী, হামলা ও ভাংচুর


চরফ্যাসন প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ১৫ই অক্টোবর ২০২১ রাত ১২:৪৭

remove_red_eye

২৯

 

চরফ্যাশন প্রতিনিধি : বিয়ে বাড়িতে জামাইয়ের বোনের পেটে চিমটি কাটাকে কেন্দ্র করে দফায় দফায় হামলা ভাংচুরের ঘটনা ঘটেছে। চরফ্যাশন উপজেলার আসলামপুর ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ড কালাপুনিয়ার পোল গ্রামের কৃষক নসু মিয়ার মেয়ের বিয়েতে বরের বোনের পেটে চিমটি কাটার অভিযোগ ওঠে। এ ঘটনায় বরপক্ষের লোকজন প্রতিবাদ করলে বিয়ে বাড়িতে আসা অভিযুক্ত ফারুকের ছেলে বেকু মনির ও তার সহযোগীরা ক্ষুব্ধ হয়ে ওঠে। পরে মনিরের নেতৃত্বে ফারুক, কুদ্দুস ও ফরিদসহ অন্তত ১০ থেকে ১৫ জন একত্রিত হয়ে বরপক্ষ ও কনে পক্ষের উপর দফায় দফায় হামলা ভাংচুর ও লুটপাট করে বলে ভূক্তভোগীরা অভিযোগ করেন।

ভিকটিমের বড় বোন মিনা বেগম বলেন, গত সোমবার রাতে আমার ছোট ভাইয়ের বিয়ের সময় স্থানীয় যুবক আমার ছোট বোনের পেটে চিমটি মারে এবং জড়িয়ে ধরে শ্লীলতাহানী করে। পরে স্থানীয় ওই যুবককে আমার ভাই ও বোনের স্বামী ডেকে বিষয়টি জিজ্ঞেস করলে তাঁরা দলবল নিয়ে প্লাস্টিকের চেয়ার ও লাঠিসোটা এবং দা’সেনি দিয়ে আমাদের মারধর ও কুপিয়ে জখম করে এবং ঘরের আসবাবপত্র ভাংচুর করে। এসময় আমাদের টাকা পয়সা ও স্বর্ণালঙ্কার লুটপাট করে নিয়ে যায়। কনের বাবা মো. নসু মিয়া অভিযোগ করে বলেন, আমার জামাইয়ের বোনকে শ্লীলতাহানী  করলে বিষয়টি নিয়ে মনিরের সঙ্গে আমাদের বাকবিতÐা হয়। এসময় মনিরের নেতৃত্বে আমাদের হামলা করে। এঘটনায় আমার স্ত্রী, জামাই, বেয়াইসহ অন্তত ২০জন আহত হয়। নসুর ছেলে রুবেল জানান, পূর্বেও জমি-জমার বিরীধ নিয়ে এই মনির ও তাঁর পরিবারের লোকজন মিলে আমাদেরকে ৩ বার মারধর করে। কনের মা ছলেমা খাতুন বলেন, এঘটনার পরে আমাদের পায়ের তলা থেকে মাথার তালু পর্যন্ত পিটিয়ে এবং ঘরে প্রবেশ করে আমার স্বামী, ছেলে, মেয়ে ও আমাকে নির্যাতন করবে বলেও হুমকি দিচ্ছে সন্ত্রাসী মনির। আমরা যদি প্রশাসনের কাছে বিচার দেই তাহলে আমাদের হত্যা করবে বলে সাশিয়ে গেছে মনিরের বাবা ফারুক ও অন্যন্যরা। 

এদিকে স্থানীয় একাধিক এলাকাবাসী জানান, মনির দীর্ঘদিন ধরে ওই এলাকায় জুয়া ও মাদকের সঙ্গে জড়িত রয়েছে। ঘটনার দিন পূর্ব পরিকল্পিতভাবে মনির ও তাঁর সঙ্গে থাকা এলাকার বখাটে যুবকরা ওই বিয়ে বাড়িতে জোরপূর্বক প্রবেশ করে এ বিশৃঙ্খলা করে। 

মনির বলেন, আমি বাজার থেকে রাতে বাসায় যাওয়ার সময় ওই বাড়িতে হট্টগোল দেখি। ঘটনাস্থলে গেলে আমার সঙ্গে বরপক্ষের লোকজনের সঙ্গে ওই মেয়ের শরীরে হাত দেয়ার বিষয়ে বাকবিতÐা হয়। এসময় বরপক্ষের লোকজন আমার উপর চড়াও হলে আমি ওই মেয়ের স্বামী ও ভাইকে মারধর করি। এঘটনায় চরফ্যাশন থানার অফিসার ইনচার্জ মনির হোসেন বলেন, থানায় একটি অভিযোগ পেয়েছি। তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

 

 

 





আরও...