অনলাইন সংস্করণ | ভোলা, শনিবার, ২৩শে অক্টোবর ২০২১ | ৮ই কার্তিক ১৪২৮


চরফ্যাশনে কর্তৃপক্ষের গাফিলতিতে নৌ-অ্যাম্বুলেন্স পানির নিচে


চরফ্যাসন প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ১৭ই সেপ্টেম্বর ২০২১ রাত ১১:১৭

remove_red_eye

৭১

চরফ্যাশন প্রতিনিধি : বিচ্ছিন্ন চরাঞ্চলের দুই লক্ষাধীক মানুষের মধ্যে স্বাস্থ্যসেবা দ্রæত পৌঁছে দেয়ার জন্য গত বছরের ৩-ফেব্রুয়রি ভোলার চরফ্যাশন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে যুক্ত হয় প্রধানমন্ত্রীর দেয়া উপহার নৌ-অ্যাম্বুলেন্স। উত্তাল মেঘনা ও তেঁতুলিয়া নদী পাড়ি দিয়ে গর্ভবতী নারীসহ মুমূর্ষ রোগীদের দ্রæত উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে স্থানান্তরের জন্য স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের অর্থায়নে নির্মাণ করা হয় এ নৌ-অ্যাম্বুলেন্সটি। কর্তৃক্ষের তদারকি ও চালকের অযত্মে উদ্বোধনের দেড় বছেরের মাথায় দক্ষিণ আইচা থানার চর কচ্ছপিয়া মৎস্যঘাটের খালে এখন নিমজ্জিত অবস্থায় পড়ে রয়েছে উপহারের এ নৌ-অ্যাম্বুলেন্স। অ্যাম্বুলেন্সটি নির্মাণে ১১লাখ ৯৫হাজার ৫০০ টাকা খরচ হয় যার ধারণ ক্ষমতা রয়েছে ১০ থেকে ১৫ জন। উপজেলার ২১টি ইউনিয়নের বাসিন্দারা নব-নির্মিত ১০০ শয্যা হাসপাতালে চিকিৎসা সেবা গ্রহণ করে। ফলে উপজেলার বিচ্ছিন্ন চরাঞ্চল কুকরি-মুকরি,ঢালচর,পাতিলা,চরহাসিনা,মুজিবনগর ও চর নিজামের অসুস্থ্য রোগীদের জরুরী চিকিৎসা সেবায় হাসপাতালে আনার জন্য একমাত্র এই এ্যাম্বুলেন্সটি গুরুত্বপূর্ণ ছিলো। তবে প্রথম এক মাস ভালো সেবা দিলেও সরকারি নিয়োগপ্রাপ্ত চালক,জ্বালানি তৈল সরবারাহ,রক্ষণাবেক্ষণের জন্য বাজেট বরাদ্দ এবং বিকল হওয়া ইঞ্জিন মেরামতে যথযথ উদ্যোগ না থাকায় পানিতে তলিয়ে আছে এই অ্যাম্বুলেন্সটি। বিচ্ছিন্ন চর কুকরি-মুকরি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আবুল হাসেম মহাজন বলেন,চরাঞ্চলের মানুষের চিকিৎসা সেবার জন্য নৌকা বা ট্রলারে করে আসতে হয়। নৌ-অ্যাম্বুলেন্সটি চরাঞ্চলের মানুষের স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিতে যদি কার্যকর ভূমিকা রাখে তাহলে উপকূলীয় মানুষের বিশেষ উপকার হতো। উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা.শোভন বসাক জানান, ঘূর্ণিঝড় আমফানে নৌ-এ্যাম্বুলেন্সটি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এছাড়াও পরিচালনার জন্য দক্ষ চালক না থাকা ও তদারকির জন্য অর্থ বরাদ্দের বিষয়টি নিয়ে ঊর্ধ্বোতন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে আলোচনা করা হবে।





আরও...