অনলাইন সংস্করণ | ভোলা, শুক্রবার, ১৮ই জুন ২০২১ | ৪ঠা আষাঢ় ১৪২৮


লালমোহনে বেড়েছে জুয়াড়িদের দৌরাত্ম দ্রুত হস্তক্ষেপ চায় উপজেলাবাসী


লালমোহন প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ৫ই জুন ২০২১ রাত ১০:১৬

remove_red_eye

৫৩


লালমোহন প্রতিনিধি : করোনাকালিন এ লকডাউনে ভোলার লালমোহনে বেড়ে গেছে জুয়া খেলার হিড়িক। ছোট ছোট কিশোর থেকে শুরু করে যুবক ও বয়স্করা উপজেলার বিভিন্ন স্থানে জুয়া খেলে চলছে। জুয়ার কারণে এলাকায় বেড়েছে চুরি ও মাদকের রমরমা ব্যবসা। একই সাথে সংসারে দেখা দেয় অশান্তি।
বিভিন্ন অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, লালমোহন উপজেলার ধলীগৌরনগর, রমাগঞ্জ ও গজারিয়া এলাকার কয়েকটি স্পটে রমরমা জুয়ার আসর চলছে। এসব আসরে স্থানীয়দের পাশাপাশি অন্যান্য এলাকা থেকে বড় বড় জুয়াড়িরা এসে সমবেত হয়। দিনে রাতে সমানতালে চলে এ জুয়ার আসর। জুয়ার কারণে এলাকার কিশোর, যুবকরা বিপথগামী হচ্ছে। বেড়ে যাচ্ছে অপরাধমূলক কর্মকান্ড।  কেউ প্রতিবাদ করলে জুয়াড়িরা তাদের হুমকি দিচ্ছে বলে অভিযোগ করেন এলাকাবাসী।
লালমোহন রমাগঞ্জের পূর্বচরউমেদ আজাহার রোড ও ধলীগৌরনগরের চরমোল্লাজী গ্রামের প্রকাশ্যে জুয়ার আসরে কয়েকটি ভিডিও গোপনে ধারণ করেন স্থানীয়রা। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এসব ভিডিও ছড়িয়ে পড়লে তোলপাড় শুরু হয়। পুলিশ ওই জুয়ার আসরের এক হোতা লোকমান ডুবাইকে আটকও করে।
লালমোহন আজাহার রোডের স্থানীরা জানান, ওই এলাকার পূর্বমাথার ভাঙ্গারী ব্যবসায়ী আলমগীরের ভাঙ্গারী দোকানে প্রায় ৩০ জন কিশোর ও যুবক কাজ করে। সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত ফেরি করে ভাঙ্গারী মালামাল সংগ্রহ করে তারা। রাতে এ সকল কিশোর ও যুবকরা জুয়া খেলায় মত্ত হয়। ব্যবসায়ী আলমগীরকে সহযোগিতা করেন প্রবাসী জসিম ডুবাইয়ের ছেলে লোকমান। এছাড়া ধলীগৌরনগরের চরমোল্লাজী গ্রামের জুয়ার আসর পরিচালনা করেন নুরনবী, নাঈম ও মানিক। উপজেলার বিভিন্ন এলাকা থেকে জুয়াড়িরা সেখানে যায়। ওই এলাকার বেপারী বাড়ির পূর্ব পাশে ও মোজাম্মেল মেম্বার বাড়িতে বসে এ আসর।
স্থানীয়রা মনে করছেন দ্রæত যদি এসব জুয়াড়িদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা না নেয়া হয় তাহলে উপজেলায় বেড়ে যাবে অপরাধমূলক কর্মকাÐ। তাই প্রশাসনকে দ্রæত এব্যাপারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের দাবী তাদের।
লালমোহন থানার অফিসার ইনচার্জ মাকসুদুর রহমান মুরাদ জানান, এদের বিরুদ্ধে অভিযান অব্যাহত রয়েছে, মাননীয় এমপি নূরুন্নবী চৌধুরী শাওনেরও কঠোর নির্দেশনা আছে জুয়া ও মাদকের বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থান নিতে। তার নির্দেশনা মোতাবেক আমরা জুয়া ও মাদকের বিরুদ্ধে  নিয়মিত অভিযান চালাচ্ছি।