অনলাইন সংস্করণ | ভোলা, রবিবার, ২০শে জুন ২০২১ | ৬ই আষাঢ় ১৪২৮


চরফ্যাশনে নিরীহ একটি পরিবারকে হয়রানির অভিযোগ


চরফ্যাসন প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ২রা জুন ২০২১ রাত ১০:৪১

remove_red_eye

১৪৭


চরফ্যাশন প্রতিনিধি : কু-প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় একটি পরিবারকে একের পর এক হয়রানির অভিযোগ পাওয়া গেছে। ভোলার চরফ্যাসন উপজেলার নুরাবাদ ৩নং ওয়ার্ডস্থ চরতোফাজ্জল গ্রামের মোস্তফা সিকদার এবং তার স্ত্রী রাবেয়া  আকতার বুধবার সংবাদকর্মীদের কাছে এমন অভিযোগ করেছেন।
 রাবেয়া  আকতার অভিযোগ করে বলেন, আমার স্বামী পেশায় রাজ মিস্ত্রি। ৫বছর পূর্বে বিভিন্ন সময় প্রতিবেশি নিজাম হাওলাদার আমাকে কু-প্রস্তাব দেন। আমি রাজি না হওয়ায় তিনি আমার বিরুদ্ধে অবস্থান নেন। ২০১৬সনে দিশারী সমাজ উন্নয়ন সংস্থা আমার বাড়িতে “চরতোফাজ্জল দিশারী উপানুষ্ঠানিক প্রাথমিক বিদ্যালয়” স্থাপন করলে  প্রতিপক্ষ নিজাম হাওলাদার  স্কুলটি তাঁর বাড়িতে স্থানান্তরের চেষ্টা করেন । কিন্তু এলাকার শিক্ষার্থী অভিভাবকদের আপত্তির কারনে তার সেই চেষ্টা ব্যর্থ হয়। এরপর তিনি স্কুলটির সভাপতি হওয়ার চেষ্টা করেন। শিক্ষার্থী অভিভাবকদের আপত্তির কারনে তার সেই চেষ্টাও ব্যর্থ হয়। ২০১৮সনে স্থানীয় একটি এনজিওর সহায়তায় ৩৫টি টার্কি মুরগী নিয়ে তিনি একটি খামার চালু করেন। পরবর্তীতে তার চেষ্টায় ওই খামারে ৭০টি টার্কি মুরগী হয়। কিন্তু রাতের আধারে খামারে বিষাক্ত কীটনাশক ¯েপ্র করে তার মুরগীগুলো মেরে ফেলা হয়েছে। রাবেয়ার অভিযোগ তার প্রতিপক্ষ নাজিম হাওলাদারই এমন অমানুষিক কাজটি করেছেন। ২০১৬সনের শুরুর দিকে রাবেয়ার স্বামীর কাছ থেকে ৫হাজার টাকা হাওলাত নেয় নিজাম হাওলাদার। পাওনা টাকা চাইতে গেলে নিজাম হাওলাদার তার স্বামীকে পিটিয়ে আহত করেছিল। তখন থানায় গিয়েও আইনী সহায়তা পাননি রাবেয়া আক্তার।রাবেয়া আরো অভিযোগ করেন, করোনার পূর্বে শিক্ষার্থীদের পাঠ দানের সময় স্কুলে ইট নিক্ষেপ করে তাঁর ছেলে আতিক ও আশিক । এতে এক ছাত্রের মাথা ফেটে যায়। এছাড়া আতিক ও আশিক দীর্ঘদিন ধরে তার অষ্টম শ্রেণীতে পড়–য়া মেয়েকে রাস্তায় একা পেলে উত্ত্যক্ত করে আসছে।রাবেয়ার স্বামী মোস্তফা সিকদার বলেন, বিগত ইউপি নির্বাচনে নৌকায় ভোট দেয়ায় নিজাম হাওলাদারের ইন্দনে আমার ১০টাকা কেজির চালের কার্ডটিও কেড়ে নেয়া হয়েছে। আমার ছেলেকে বলা হয়েছে তোমরা আর চাল পাবানা। ২০১৬এর পর থেকে এপর্যন্ত নিজাম হাওলাদার আমার পরিবারসহ আমাকে এলাকা ছাড়া করতে এলাকায় ঘটে যাওয়া ঘটনায় দায়েরকৃত বিভিন্ন মামলায় জড়িয়ে দিয়ে আমাদেরকে অযথা হয়রানি করছেন।
তবে নিজাম হাওলাদার বলেন, আমার বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগসমুহ ভ‚য়া ভিত্তিহীন ও উদ্দেশ্য মুলক, আমি মামলা দেইনি বরং তারা একটি মামলা দিয়ে আমাকে হয়রানি করছে। তাঁর ছেলে আতিক ও আশিক অভিযোগ অস্বীকার করে জানান,তাঁদের সাথে দীর্ঘ চার বছর পূর্বে বিরোধ ছিলো বর্তমানে কোনো বিরোধ নেই। তাদের বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ সঠিক নয়।