অনলাইন সংস্করণ | ভোলা, শনিবার, ১৭ই এপ্রিল ২০২১ | ৪ঠা বৈশাখ ১৪২৮


ভোলায় দীর্ঘ ৩০ বছরের অত্যাচার নির্যাতন থেকে মুক্তি চান এক বৃদ্ধা


বাংলার কণ্ঠ প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ২০শে মার্চ ২০২১ রাত ১০:৩৯

remove_red_eye

৮৮




বাংলার কণ্ঠ প্রতিবেদক : দীর্ঘ ৩০ বছর ধরে প্রতিপক্ষের অত্যাচার নির্যাতন ও সন্ত্রাসী কর্মকাÐে অতিষ্ট হয়ে অবশেষে সংবাদ সম্মেলন করে সুষ্ঠু বিচার দাবি করেছেন ভোলা সদর উপজেলার বাপ্তা পাইলট এলাকার দিলারা খান নামের এক অশীতিপর বৃদ্ধা। তিনি চিহ্নিত ওই সন্ত্রাসীদের হাত থেকে মুক্তি চাচ্ছেন।
শনিবার ভোলা প্রেসক্লাবে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে বৃদ্ধা তার অভিযোগে বলেন, প্রতিবেশী তোফাজ্জল হোসেন মোল্লা, কয়ছর পÐিত ও মনির উদ্দিন পাটোয়ারিসহ একটি ভূমিদস্যু সন্ত্রাসী গ্রæপ ১৯৯০ সাল থেকে তার স্বামীর ক্রয়কৃত ১৫ শতাংশ জমি জবর দখল করে আসছে। শুধু তাই নয় দীর্ঘ দিন ধরে দিলারা খানের পরিবারের উপর নির্যাতন করে আসছে। আইন আদালত শালিস বিচার কিছুই তারা মানছে না। সন্ত্রাসীদের ভয়ে এলাকার কেউ মুখ খুলতে পারছে না। ওই সন্ত্রাসীরা ১৯৯০ সাল থেকে ২০২১ সাল পর্যন্ত অসংখ্যবার দিলারা বেগমের বাড়িঘরে হামলা, মারধর ও ভাংচুর চালিয়েছে। এক পর্যায়ে তার স্বামী এমদাদুল হককেও কুপিয়ে গুরুতর জখম করে এবং পরে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার স্বামীর মৃত্যু হয়। এরপর সন্ত্রাসী গ্রæপটি আরও বেপরোয়া হয়ে ওঠে। প্রতিপক্ষ গ্রæপ হামলা, মামলা ও শালিস বিচারের নামে এ পর্যন্ত দিলারা খানের ১০ লক্ষাধিক টাকার ক্ষতি সাধরন করেছে। তাদের অত্যাচার নির্যাতনের এক পর্যায়ে বাড়িঘর বিক্রি করে অন্যত্র চলে যাওয়ার চেষ্টা করেও ব্যর্থ হয়েছেন দিলারা খান। লোকজনকে ওই জমি কিনতে বাধা দেয়া হচ্ছে বলেও অভিযোগ করেন বৃদ্ধা। এ অবস্থায় চরম মানবেতর জীবন কাটাচ্ছেন দিলারা খান ও তার পরিবারের লোকজন।
সর্বশেষ গত মাসে এক আবেদনের প্রেক্ষিতে ভোলার লিগ্যাল অফিস থেকে সার্ভেয়ার গিয়ে দেখেন এখনো ১৫ শতাংশ জমি প্রতিপক্ষের সন্ত্রাসীরা জবর দখল করে আছে। ওই বিরোধীয় ভূমি মাপতে গেলে প্রতিপক্ষের সন্ত্রাসীরা বাধা দেয় এবং দুর্ব্যবহার করে। এমতাবস্থায় তার এসব অভিযোগের যথাযথ তদন্ত স্বাপেক্ষে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য প্রশাসনের উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে জোর দাবি জানিয়েছেন অসহায় বিধবা বৃদ্ধা দিলারা খান।