অনলাইন সংস্করণ | ভোলা, শনিবার, ১৭ই এপ্রিল ২০২১ | ৪ঠা বৈশাখ ১৪২৮


চরফ্যাসনে পরকীয়া প্রেমিকের সাথে সংসার,সাবেক স্বামীর নামে মামলা


চরফ্যাসন প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ১২ই মার্চ ২০২১ রাত ০৯:৪৬

remove_red_eye

৩০৪

চরফ্যাসন প্রতিনিধি \ ভোলার লালমোহনে গৃহবধূ  পরকীয়া প্রেমিকের সাথে উধাও  হয়ে ঘর বাঁধলেন প্রেমিকা। সাবেক স্মামীর দেয়া৩ ভরি সোনার অলংকার ও নগদ ১ লাখ টাকা নিয়ে গেছেন গৃহবধূ  আকলিমা এমন অভিযোগ  করেন সাবেক স্বামী নয়ন ও তার পিতা আবুল কালাম।
লালমোহনে পরকীয়ায় আসক্ত হয়ে চরফ্যাসন উপজেলার কলমী ইউনিয়নে ওই প্রেমিকের বাড়ীতে এসে বধূ সেজেছেন প্রেমিকা। বিয়ের কয়েক মাসের মধ্যেই আকলিমার কোলজুড়ে এলো সন্তান। করলেন ভোলা জজকোর্টে সাবেক স্বামীর বিরুদ্ধে  যৌতুক ও নির্যাতনের মামলা। গত ২১ মার্চ ২০১৯ লালমোহন উপজেলার ধলীগৌরনগর ইউনিয়নের চরমোল্লাজী চতলা গ্রামের আবুল কালামের ছেলে হাবিবুল্লাহ নয়নের সাথে একই ইউনিয়নের লর্ডহাডিঞ্জ গ্রামের রুস্তুম আলীর মেয়ে আকলিমা বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন।  বিয়ের পর স্বামীর বাড়িতে থাকতেন গৃহবধূ  আকলিমা। ২০১৯ সালের ২০ নভেম্বর গভীর রাতে সকলের অগোচরে  নগদ টাকা ও স্বর্ণালংকার নিয়ে স্বামী নয়নের বাড়ী থেকে বাপের বাড়ীতে চলে আসে আকলিমা।  স্ত্রীকে বিভিন্ন আত্মীয় স্বজনের বাড়ীতে খোঁজাখুঁজির পর অবশেষে পাশের উপজেলা চরফ্যাশনের চরকলমী গ্রামের ছিদ্দিক মিস্ত্রীর  ছেলের সাথে গৃহবধূ আকলিমার বিয়ে হয়েছে এবং এ বাড়ীতেই আছে বলে সন্ধান পাওয়া যায়।  গত ৪ জানুয়ারী২০২১ পুত্রবধু ও তার বর্তমান  স্বামীর পরিবারের লোকজনের নামে দক্ষিণ আইচা থানায় লিখিত  অভিযোগ  করেন নয়নের পিতা আবুল কালাম। আকলিমা বাদী হয়ে গত ৬ নভেম্বর নয়নের বিরুদ্ধে  যৌতুক দাবীর অভিযোগ এনে লালমোহন সিনিয়র সহকারী জজ ও পারবারিক আদালতে মামলা করেন এবং ২০ নভেম্বর  ২০১৯ তারিখে নোটারী পাবলিক ভোলার মাধ্যমে নয়ন কে ডির্ভোস দেন তিনি।  শুক্রবার সকালে সরেজমিনে আকলিমার বর্তমান  স্বামী ও শ্বশুর ছিদ্দিক মিস্ত্রীর বাড়ীতে গেলে আকলিমা জানান, আমার এখন সংসার ও সন্তান আছে। আমি এই সংসারে সুখে আছি। তবে যৌতুক মামলার ব্যাপারে কোন কথা বলতে রাজি হননি তিনি। সাবেক স্বামী নয়নের নগদ টাকা,ও স্বর্ণাংলকার বিষয়ে কথা উঠলে কোন কথা না বলে ঘরের ভিতরে চলে যান তিনি।