অনলাইন সংস্করণ | ভোলা, মঙ্গলবার, ১৯শে জানুয়ারী ২০২১ | ৫ই মাঘ ১৪২৭


ভোলায় শীত এলেই শুরু হয় হাঁস খাওয়ার উৎসব


বাংলার কণ্ঠ প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ১২ই জানুয়ারী ২০২১ রাত ১০:২১

remove_red_eye

৪৯


মোঃ মোশারফ হোসেন : গাঙ্গেয় অববাহিকার নি¤œাঞ্চলে অবস্থিত দেশের একমাত্র দ্বীপ জেলা ভোলা। চারদিকে নদী পরিবেষ্টিত এ জনপদের ইতিহাস ও ঐতিহ্য আবহমান বাংলার অন্যান্য অঞ্চলের  চেয়ে অনেক টা আলাদা। মেঘনা, তেঁতুলিয়া বিধৌত বঙ্গোপসাগরের উপকূলে জেগে ওঠা ভূমির যেদিকে চোখ যায় শুধু পলি মিশ্রিত সমতল ভূমি। জেলার যেদিকে চোখ যায় সেদিকেই নিসর্গ। দিগন্ত বিস্তৃত মাঠের পাশেই খাল, নদী, ডুবচর আর পাখিদের জলকেলি, কখনো কাদায় নামা, কখোন কৃষকের ক্ষেতর বিজতলা উজার করা সব মিলে প্রকৃতি যেন তার নিপুন হাতে এ জেলাকে সাজিয়ে তুলেছে। প্রাকৃতিক সুষমামÐিত এ জেলায় শুধু গাছগাছালি ও পাখপাখালির মেলা। ভোলায় উৎপাদিত মোষের দই, রূপালী ইলিশ ভোলাবাসীর চাহিদা পূর্ণ করে বিদেশের মুদ্রা অর্জনে সক্ষম তেমনি শীতের সময় খেজুর রসের ফিরনি, পিঠা-পুলি খাওয়ার পাশাপাশি হাঁসের মাংস খাওয়া নিয়ে রীতিমতো উৎসবে মুখরিত থাকে পুরো জেলার মানুষ। হাঁস সর্বভারতীয় ঙঢ়ঢ়ড়ৎঃঁহরংঃরপ ভোজনকারী এবং ঘাস, জলজ উদ্ভিদ, পোকামাকড়, বীজফল, মাছ খেয়ে থাকে। দেশের বিভিন্ন জায়গায় হাঁসের হ্যাচারি গড়ে উঠলেও ঘরোয়াভাবে লালন করা ‘দেশি হাঁস’ বলে খ্যাত হাঁসই সবার কাছে খুব প্রিয়। দেশে বিভিন্ন জাতের হাঁস থাকলেও শীতে পাতি হাঁসের মাংস খেতে সুস্বাদু। এ নজেলায় আসা পর্যটকদের কাছে হাঁসের মাংসের ব্যাপক চাহিদা রয়েছে। শীত এলেই এখানে হাঁস খাওয়ার ধুম পরে। বাড়িতে আসা মেহমানদের আপ্পায়নে হাঁসের মাংস আর মহিষের টক দই যেন প্রথা হয়ে দাড়িয়েছে। পিকনিক অথবা বন্ধুবান্ধবের আনন্দো ভোজন হাঁসের মাংস ছাড়া পূর্ণতা পায় না। তবে এই হাসের মাংস নিয়ে রয়েছে নানা মতভেদ।

এ ব্যাপারে সদর উপজেলা প্রাণী সম্পদ কর্শকর্তা সম্পর্কে ডা. দীনেশ চন্দ্র মজুমদার বলেন, হাঁসের মাংস খেতে খুবই সুস্বাদু। এই মাংসে চর্বি বেশি। চর্বি ফেলে দিয়ে মাংস রান্না করলে খুব একটা অপকার নেই। তবে যাদের শরীরে রক্ত চলাচলে সমস্যা  তাদের জন্য এই মাংস খেলে একটু সমস্যার সৃষ্টি করতে পারে। হাঁসের মাংসের পুষ্টিগুন বেশি। এতে নিয়াসিন, ফসফরাস, রিবোফ্লোবিনসহ নানা উপাদান আছে। পুষ্টিবিদ (ডায়েট) সৈয়দা শারমিন আক্তারের মতে, হাঁসের মাংস শরীরের তাপমাত্রা উষ্ণ রাখতে সাহায্য করে। তবে গলাব্যথা ও উচ্ছরক্তচাপের সমস্যা যাদের আছে তাদের হাঁসের মাংস না খাওয়াই ভালো। শীতে বিয়ের অনুষ্ঠানে, জামাই আপ্যায়ন, বনভোজন, ঘরোয়া পরিবেশসহ নানাভাবে হাঁস খাওয়ার উৎসবে মজে প্রত্যেক শ্রেণি পেশার মানুষ। বিশেষ করে ভোলার হাঁসের মাংসের সুনাম সারা বাংলাদেশে। এ সময় বিভিন্ন জেলা থেকে আত্মীয়স্বজন হাঁস উৎসবে যোগ দেয়। পুরো শীতজুড়েই যেন এক উৎসবমুখর পরিবেশ বিরাজ করে ভোলা জেলায়।