অনলাইন সংস্করণ | ভোলা, মঙ্গলবার, ২রা জুন ২০২০ | ১৯শে জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭


ভোলায় নারিকেল পারতে বাধা দেয়ায় ২ দফা হামলা-সংঘর্ষ-ভাংচুর-উত্তেজনা: আহত-১০


বাংলার কণ্ঠ প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ১৩ই মে ২০২০ সন্ধ্যা ০৬:০৭

remove_red_eye

৬৭

বাংলার কণ্ঠ প্রতিবেদক:: ভোলার পূর্ব ইলিশা ইউনিয়নের ৫নং ওয়ার্ডের বাঘার হাওলা এলাকায় নারিকেল গাছ থেকে নারিকেল পাড়তে গেলে বাধা দেয়ার কারনে ২ দফা হামলা, ভাংচুর, সংর্ঘষ, লুটপাটের ঘটনা ঘটেছে। এ সময় শিশুসহ ২ জনকে পিটিয়ে হাত ভেঙ্গে দিয়ে শ্লীলতাহানী করে তান্ডব চালানো হয়। এতে উভয় পক্ষের অন্তত ১০ জন আহত হয়েছে। এদের মধ্যে গুরুতরদের ভোলা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এ ঘটনায় ভোলা থানায় মামলা হলেও বুধবার এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত কাউকে পুলিশ গ্রেফতার করতে পারেনি। অসহায় ভ্যান চালক মো: মোসলে উদ্দিন জানান, দর্ীঘ দিন ধরে তার প্রতিপক্ষ মো: পারভেজ পাটোয়ারি,মো: সিরাজ পাটোয়ারি,মো: আলমিন গ্রুপের সাথে ভোগ দখলীয় সম্পত্তি নিয়ে বিরোধ চলে আসছে। এ নিয়ে এলাকায় গন্যমান্য ব্যাক্তিরা শালিশের চেষ্টা করলেও তারা তোয়াক্কা করেনি। এ অবস্থায় গত ৯ মে দুপুর ২ টার দিকে প্রতিপক্ষ গ্রুপের পারভেজ ভ্যান চালক মোসলেউদ্দিনের সম্পত্তির নারিকেল গাছ থেকে নারিকেল পারতে যায়। এসময় বাধা দিলে মোসলে উদ্দিন (৩৮) ও তার স্ত্রী রানু বিবি (৩৫ কে বেধরক মারধর করে। এতে গুরুতর আহত অবস্থায় তাদের ভোলা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। প্রথমে এঘটনা স্থানীয় শালিশদ্বারের মাধ্যমে সমাধানের চেষ্টা করা হলেও উল্টো ঘটনার পর দিন ১০ মে দুপুরে মো: পারভেজ পাটোয়ারি,মো: রিয়াজ পাটোয়ারি গ্রুপ মোসলেউদ্দিনের বাড়িতে দ্বিতীয় দফা লাঠি সোটা নিয়ে হামলা চালায়। এসময় মোসলেউদ্দিনের মেয়ে সাগরিকা বেগম(১২), জোসনা বেগমকে পিটিয়ে তাদের হাত ভেঙ্গে দেয়। এছাড়াও আরো এক বোনকে শ্লীতাহানী করে। এসময় তারা ঘরবাড়ি ভাংচুর করে লুটপাট করে। এতে অন্তত ৫ জন আহত হয়েছে। এদের মধ্যে গুরুতরদের ভোলা সদর হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হয়। এ ঘটনায় মো: মোসলেউদ্দিন বাদী হয়ে ৭ জনকে আসামী করে ১১ মে ভোলা থানায় মামলা করেন। তারা এখন আতংকে রয়েছেন। অপর দিকে এ ব্যাপারে মো: মোসলে উদ্দিনের প্রতিপক্ষ মো: পারভেজ পাটোয়ারির পিতা আ: মালেক পাটোয়ারি ও তার ছেলে নুরুউদ্দিন জানান, তাদের বিরুদ্ধে যে অভিযোগ করা হয়েছে তা সত্য নয়। মূলত মোসলে উদ্দিনের ১ শতাংশ জমি থাকলেও সে তাদের জমি দখলের চেষ্টা করছে। ঘটনার দিন আলমিন নিজেদের নারিকেল গাছের ডাব পাড়তে গেলে মোসলেউদ্দিন দা নিয়ে হামলা চালায় । এতে আলামিন (২২) ও বারেক (৮০) আহত হয়। পর দিন দ্বিতীয় দিনও মোসলেম পক্ষ হামলা চালিয়ে কুলসুম বিবি ৫০,আসমা বেগম (৩০)কে আহত করে। তাদেরকে ভোলা হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হয়। এ ব্যাপরে ভোলা থানায় তাদের পক্ষ থেকে ৭ জনকে আসামী করে আবদুল মালেক বাদী হয়ে একটি মামলা দিয়েছেন। এ ব্যাপারে ভোলা থানার ওসি এনায়েত হোসেন জানান, পুলিশ এখনো কাউকে গ্রেফতার করেনি।




আজকের সাহরীর ও ইফতারে সময় সূচী ভোলা জেলার জন্য