অনলাইন সংস্করণ | ভোলা, মঙ্গলবার, ৭ই ফেব্রুয়ারি ২০২৩ | ২৫শে মাঘ ১৪২৯


ভোলার প্রবীণ সাংবাদিক বীর মুক্তিযোদ্ধা এম হাবিবুর রহমানকে মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সংবর্ধনা


বাংলার কণ্ঠ প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ২৪শে জানুয়ারী ২০২৩ রাত ১১:০১

remove_red_eye

১০৯




বাংলার কণ্ঠ প্রতিবেদক : মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন সাংবাদিকতায় বিশেষ অবদান রাখাসহ টানা তৃতীয়বারের মতো ভোলা প্রেসক্লাবের সভাপতি নির্বাচিত হওয়ায় প্রবীণ সাংবাদিক বীর মুক্তিযোদ্ধা এম. হাবিবুর রহমানকে সংবর্ধনা জানিয়েছে ভোলার মুক্তিযোদ্ধা সংসদ। মঙ্গলবার দুপুরে সদর উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের হলরুমে এই সংবর্ধনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। একই সাথে সংবর্ধনা দেয়া হয় প্রেসক্লাবের নব নির্বাচিত কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্যদেরকে। অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য, ভোলা-১ আসনের সংসদ সদস্য ও সাবেক মন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ ঢাকা থেকে এক বার্তায় সকলকে অভিনন্দন ও শুভেচ্ছা জানান।

ভোলা সদর উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের কমান্ডার অহিদুর রহমানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তাব্য রাখেন, পুলিশ সুপার মোহাম্মদ সাইফুল ইসলাম (বিপিএম, পিপিএম), অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক বিবেক সরকার, জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের কমান্ডার দোস্ত মাহমুদ, ডেপুটি কমান্ডার শফিকুল ইসলাম। এছাড়াও বক্তব্য রাখেন, বীর মুক্তিযোদ্ধা রফিকুল ইসলাম, বীর মুক্তিযোদ্ধা এম.এ তাহের, বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুর রাজ্জাক শশী, বীর মুক্তিযোদ্ধা আসমত আলী, বীর মুক্তিযোদ্ধা জুলফিকার আলী ও প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক অমিতাভ রায় অপু প্রমূখ।
এ সময় বিশেষ অতিথির বক্তব্যে পুলিশ সুপার মো: সাইফুল ইসলাম বলেন, সংবর্ধিত ব্যক্তিত্ব বীর মুক্তিযোদ্ধা হাবিবুর রহমান অত্যন্ত সাহসী এবং দেশপ্রেমিক একজন ব্যক্তি। তার মত একজন মুক্তিযোদ্ধা যে সংগঠনের প্রধান থাকেন সেই সংগঠন আলোর বার্তা ছড়িয়ে দেয় প্রতিটি ক্ষেত্রে। তিনি আরো বলেন, এই মানুষটি মহান স্বাধীনতা যুদ্ধে অংশ নেয়ার পাশাপাশি কলম হাতে জীবন বাজী রেখে মুক্তিযুদ্ধের পক্ষে কাজ করেছেন। আজও নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছেন। তিনি ১৯৭০ সালে তৎকালীন পাকিস্তান সররকার এর নির্বাচনের আগমুহূর্তে জান্তা সরকারের রক্তচক্ষু উপেক্ষো করে ঘুর্ণিঝড় ও জলোচ্ছ¡াসে ভোলাসহ উপকূলীয় এলাকায় যে বিপুল পরিমাণ ক্ষয়-ক্ষতি হয়েছিল সেই ক্ষয়ক্ষতির সচিত্র প্রতিবেদন প্রকাশ করেন পূর্বদেশ পত্রিকায়। এটা অত্যন্ত সাহসীকতার পরিচয় বহন করে।


অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক বিবেক সরকার বলেন, মুক্তিযোদ্ধারা দেশের সূর্য সন্তান। সরকার তাদেরকে সর্বোচ্চ সম্মান দিয়েছেন। ভোলা সদর উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ থেকে বীর মুক্তিযোদ্ধা সাংবাদিক এম হাবিবুর রহমানকে সংবর্ধনা দিয়ে অত্যন্ত ভাল একটি কাজ করেছেন।
মুক্তিযোদ্ধা সংসদের ডেপুটি কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা শফিকুল ইসলাম বলেন, আমাদের সহযোদ্ধা বীর মুক্তিযোদ্ধা হাবিবুর রহমান স্বাধীনতা যুদ্ধে অংশ গ্রহণের পাশপাশি যুদ্ধ চলাকালে জীবন বাজী রেখে পাক হানাদার বাহিনীর টর্চার  সেল মরনপুরী ওয়াপদা কলোনির পার্শ্ববর্তী বদ্ধভূমির লাশের স্তুপের ছবি তোলেন। পরবর্তীতে ওই ছবি সচিত্র প্রতিবেদন আকারে পূর্বদেশ পত্রিকায় প্রকাশ হয়। আজও তিনি সাংবাদিতকার সাথে যুক্ত রয়েছেন। অত্যন্ত সৎ,  নির্ভিক ও দক্ষতার সাথে তিনি ভোলার সাংবাদিকদের নেতৃত্ব দিয়ে আসছেন। তাকে সংবর্ধনা দিতে পেরে আমরা গর্বিত।  

বীর মুক্তিযোদ্ধা ট্রুপস কমান্ডার আসমত আলী বলেন, ভোলার বীর মুক্তিযোদ্ধা পূর্বদেশ পত্রিকার তৎকালীন সাংবাদিক হাবিবুর রহমান আমাদের সাথে অংশ নিয়েছেন। তিনি জীবনের ঝুকি নিয়ে ওয়াপদা কলোনির বদ্ধভূমির ছবি তুলে অত্যন্ত সাহসীকতার পরিচয় দিয়েছেন। তার এই সহসী কাজের জন্য আমরা গর্বিত। শুধু তাই নয় তিনি রনাঙ্গনেও আমাদের সহযোদ্ধা ছিলেন। তাকে আজ আমাদের মুক্তিযোদ্ধা সংসদ থেকে সংবর্ধনা দিতে পেরে আমরা অন্যন্ত আনন্দিত।
বীর যুক্তিযোদ্ধা জুলফিকার আহমেদ বলেন, মহান স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় সাংবাদিক এম হাবিবুর রহমান এবং আবু তাহের আমাদের সহযোদ্ধা হিসেবে কাজ করেছেন। সংবাদিকতার পাশাপাশি সরাসরি যুদ্ধেও অংশ নিয়েছেন ভোলার এই প্রবীণ সাংবাদিক। তারা আমাদের সাথে ছিলেন। তারা আমাদের রনাঙ্গনের সাথী ভাই। আজও সাংবাদিকতা করে তারা দেশ ও জাতির খেদমত করে যাচ্ছেন। আমরা তাদের জন্য গর্বিত। তাদেরকে বিন¤্র শ্রদ্ধা জানাই।

বীর মুক্তিযোদ্ধা রফিকুল ইসলাম বলেন, সাংবাদিক হাবিবুর রহমান একজন দেশপ্রেমিক মুক্তিযোদ্ধা। তিনি যুদ্ধকালীন সাংবাদিকতার পাশাপাশি আমাদের সহযোদ্ধাও ছিলেন। তিনি এখনো সাংবাদিকতার সাথে যুক্ত রয়েছেন। হাবিব রিপোর্টার অত্যন্ত শ্রদ্ধাভাজন ব্যক্তিত্ব। মুক্তিযুদ্ধে সাংবাদিক এম হাবিবুর রহমানের বিশেষ অবদান রাখেন। তিনি বর্তমানে বাংলাদেশ বেতরের ভোলা জেলা প্রতিনিধি হিসাবে কাজ করছেন ও ভোলা থেকে তার সম্পাদনায় গত ২৮ বছর ধরে “দৈনিক বাংলার কণ্ঠ” পত্রিকা প্রকাশিত হচ্ছে। যতদিন স্বাধীন বাংলাদেশ থাকবে ততদিন ভোলাবাসী সাংবাদিক এম হাবিবুর রহমানকে শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করবে।
ভোলা প্রেসক্লাবের নব নির্বাচিত কার্যকরি কমিটির সংবির্ধত সদস্যরা হলেন, সহসভাপতি কামাল উদ্দিন সুলতান (ডেইলী ইন্ডিপেনডেন্ট), সহসম্পাদক হোসেন সাদী ( বৈশাখী টিভি), অর্থ সম্পাদক এম. হেলাল উদ্দিন (গাজীটিভি ও যুগান্তর), ক্রীড়া সম্পাদক মোঃ কামরুল ইসলাম (৭১টিভি), গ্রন্থাগার সম্পাদক মোঃ তৌয়বুর রহমান (বিটিভি), সাংস্কৃতিক সম্পাদক জসিম রানা (মোহনা টিভি), নির্বাহী সদস্য জুন্নু রায়হান (বাংলাদেশ প্রতিদিন ও নিউজ-২৪) এবং নির্বাহী সদস্য নাসির উদ্দিন লিটন (সময় টিভি ও সমকাল)।
সভা শেষে ভোলা প্রেসক্লাবের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা এম হাবিবুর রহমান এবং সাধারণ সম্পাদক অমিতাভ অপুসহ কমিটির নির্বাচিত সদস্যদের হাতে সম্মাননা স্মারক তুলে দেয়া হয়।