অনলাইন সংস্করণ | ভোলা, রবিবার, ৫ই ফেব্রুয়ারি ২০২৩ | ২২শে মাঘ ১৪২৯


ভুতুড়ে খতিয়ানের ফাঁসে সর্বশান্ত অবসর প্রাপ্ত শিক্ষক পরিবার


চরফ্যাসন প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ১৪ই জানুয়ারী ২০২৩ রাত ০৮:৪৭

remove_red_eye

৪৮

সোয়েব চৌধুরী,চরফ্যাশন: ভোলার চরফ্যাশনের চর মানিকা ইউনিয়নের উপ-সহকারী ভূমি কর্মকর্তা(তহশীলদার)’র ‘ভূল নামজারী’র ফাঁসে জড়িয়ে সর্বশান্ত হয়েছে অবসর প্রাপ্ত  শিক্ষক নুরুল আমিন হাওলাদারের পরিবার। খতিয়ানে মূল মালিক আবদুস সাত্তারের জমি না থাকলেও তিনি ৩১ শতাংশ জমি ফরিদ উদ্দিন মাষ্টারের কাছে বিক্রি করেন। চর মানিকা ইউনিয়নের উপ-সহকারী ভূমি কর্মকর্তা(তহশীলদার)’র মারুফ হোসেন ফরিদ উদ্দিন মাষ্টারে ভুতুড়ে দলিল দিয়ে তার নামে নামজারী করে দেন। ফলে ফরিদ উদ্দিন মাষ্টারের নামে ভুতুড়ে দলিলে নামজারী হওয়ায় অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক নুরুল আমিন হালাদারের ৪০ বছরের ভোগদখলীয় জমি জবর দখলে মরিয়া হয়ে উঠেন ফরিদ উদ্দিন মাষ্টার। দু’টি পক্ষের মধ্যে জমির মালিকানা বিরোধ নিয়ে সৃষ্ট এ সংকটের দায় কে নেবে এবং সমাধানের কি পথ আছে এই প্রশ্ন উঠেছে সংশ্লিষ্টদের মধ্যে।
জানাগেছে, চর মানিকা মৌজার ৫৫০ খতিয়ানের ১ একর ৪৬ জমির মূল মালিক ছিলেন জনৈক আবদুস সাত্তার। যা থেকে আবদুস সাত্তার ১৯৯৬ সনে নুরুল আমিন মুন্সির কাছে সাড়ে ৬২ শতাংশ, ১৯৯৮ সনে শাহ আলমের কাছে ৬২ শতাংশ এবং একই বছরে জাহাঙ্গীর আলমের কাছে ২১ শতাংশসহ মোট ১ একর৪৫ দশমিক ৫০ শতাংশ জমি সাব কাবলা বিক্রি করেন। সংশ্লিষ্ট তিন ক্রেতাই তাদের জমি নিজ নিজ নামে জমাখারিজ করে নেন। ফলে আবদুস সাত্তারের খতিয়ানে অবশিষ্ট জমি ছিল দশমিক ৫০ শতাংশ মাত্র। কিন্ত খতিয়ানে দশমিক ৫০ শতাংশ জমি থাকা অবস্থায় আবদুস সাত্তার ২০২১ সনে মাদ্রাসা শিক্ষক ফরিদ উদ্দিনের কাছে ৩১ শতাংশ জমি বিক্রি করেন। প্রশ্ন উঠেছে-এটা কি করে সম্ভব? এ নিয়ে ফরিদ উদ্দিন ও নুরুল আমিন হাওলাদারের পরিবারের মধ্যে উত্তেজনা বিরাজ করছে।

শিক্ষক নুরুল আমিন হাওলাদার জানান,বিক্রেতা আবদুস সাত্তার এবং ক্রেতা ফরিদ উদ্দিন মাষ্টার চর মানিকা ভূমি অফিসের দায়িত্বরত উপ-সহকারী কর্মকর্তা মারুফ হোসেনকে ম্যানেজ করে ২৭০-এফ/২০২১-২০২২ মিস কেইচের মাধ্যমে খতিয়ানে ভুতুড়ে জমি দেখিয়ে ৩১ শতাংশ জমি সাবকাবলা মূলে বিক্রি করেন। ভুতুড়ে জমি দলিল নিয়ে মাদ্রাসা শিক্ষক ফরিদ উদ্দিন এখন তার ৪০ বছরের ভোগদখলীয় জমি জবর দখল করে বাড়িঘর তৈরী করছেন। ইউনিয়নের উপ-সহকারী ভূমি কর্মকর্তা(তহশীলদারের কারসাজিতে ‘ভূল নামজারী’র ফাঁসে জড়িয়ে সর্বশান্ত হয়ে পরেছেন তিনি এবং তার পরিবার।
অভিযোগ প্রসঙ্গে ফরিদ উদ্দিন মাষ্টার জানান, তিনি ওই খতিয়ানে তার খরিদা জমিতে নির্মান কাজ করছেন। নুরুল ইসলাম হাওলাদারের জমি জবর দখলের বিষয় সঠিক নয়।
অভিযোগ প্রসঙ্গে চর মানিকা ইউনিয়ন ভূমি অফিসের উপ-সহকারী ভূমি কর্মকর্তা মারুফ হোসেন জানান, ভূল হয়েছে। এ বিষয়ে একটি মিস কেইচ চলমান আছে। যেখানে পূর্ববর্তী মিসকেইচ বাতিল করে ফরিদ উদ্দনের নামে সৃজিত খতিয়ানটি বাতিলের প্রস্তব দেয়া হয়েছে।
সহকারী কমিশনার (ভূমি) আবদুল মতিন খান জানান, এবিষয়য়ে একটি মিস কেইচ চলমান আছে। ভূক্তভোগিদের কাগজ পত্র যাচাই করে ব্যবস্থা নেয়া হবে।
ভুতুড়ে খতিয়ানের ফাঁসে সর্বশান্ত অবসর প্রাপ্ত  শিক্ষক পরিবার
সোয়েব চৌধুরী,চরফ্যাশন \ ভোলার চরফ্যাশনের চর মানিকা ইউনিয়নের উপ-সহকারী ভূমি কর্মকর্তা(তহশীলদার)’র ‘ভূল নামজারী’র ফাঁসে জড়িয়ে সর্বশান্ত হয়েছে অবসর প্রাপ্ত  শিক্ষক নুরুল আমিন হাওলাদারের পরিবার। খতিয়ানে মূল মালিক আবদুস সাত্তারের জমি না থাকলেও তিনি ৩১ শতাংশ জমি ফরিদ উদ্দিন মাষ্টারের কাছে বিক্রি করেন। চর মানিকা ইউনিয়নের উপ-সহকারী ভূমি কর্মকর্তা(তহশীলদার)’র মারুফ হোসেন ফরিদ উদ্দিন মাষ্টারে ভুতুড়ে দলিল দিয়ে তার নামে নামজারী করে দেন। ফলে ফরিদ উদ্দিন মাষ্টারের নামে ভুতুড়ে দলিলে নামজারী হওয়ায় অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক নুরুল আমিন হালাদারের ৪০ বছরের ভোগদখলীয় জমি জবর দখলে মরিয়া হয়ে উঠেন ফরিদ উদ্দিন মাষ্টার। দু’টি পক্ষের মধ্যে জমির মালিকানা বিরোধ নিয়ে সৃষ্ট এ সংকটের দায় কে নেবে এবং সমাধানের কি পথ আছে এই প্রশ্ন উঠেছে সংশ্লিষ্টদের মধ্যে।
জানাগেছে, চর মানিকা মৌজার ৫৫০ খতিয়ানের ১ একর ৪৬ জমির মূল মালিক ছিলেন জনৈক আবদুস সাত্তার। যা থেকে আবদুস সাত্তার ১৯৯৬ সনে নুরুল আমিন মুন্সির কাছে সাড়ে ৬২ শতাংশ, ১৯৯৮ সনে শাহ আলমের কাছে ৬২ শতাংশ এবং একই বছরে জাহাঙ্গীর আলমের কাছে ২১ শতাংশসহ মোট ১ একর৪৫ দশমিক ৫০ শতাংশ জমি সাব কাবলা বিক্রি করেন। সংশ্লিষ্ট তিন ক্রেতাই তাদের জমি নিজ নিজ নামে জমাখারিজ করে নেন। ফলে আবদুস সাত্তারের খতিয়ানে অবশিষ্ট জমি ছিল দশমিক ৫০ শতাংশ মাত্র। কিন্ত খতিয়ানে দশমিক ৫০ শতাংশ জমি থাকা অবস্থায় আবদুস সাত্তার ২০২১ সনে মাদ্রাসা শিক্ষক ফরিদ উদ্দিনের কাছে ৩১ শতাংশ জমি বিক্রি করেন। প্রশ্ন উঠেছে-এটা কি করে সম্ভব? এ নিয়ে ফরিদ উদ্দিন ও নুরুল আমিন হাওলাদারের পরিবারের মধ্যে উত্তেজনা বিরাজ করছে।

শিক্ষক নুরুল আমিন হাওলাদার জানান,বিক্রেতা আবদুস সাত্তার এবং ক্রেতা ফরিদ উদ্দিন মাষ্টার চর মানিকা ভূমি অফিসের দায়িত্বরত উপ-সহকারী কর্মকর্তা মারুফ হোসেনকে ম্যানেজ করে ২৭০-এফ/২০২১-২০২২ মিস কেইচের মাধ্যমে খতিয়ানে ভুতুড়ে জমি দেখিয়ে ৩১ শতাংশ জমি সাবকাবলা মূলে বিক্রি করেন। ভুতুড়ে জমি দলিল নিয়ে মাদ্রাসা শিক্ষক ফরিদ উদ্দিন এখন তার ৪০ বছরের ভোগদখলীয় জমি জবর দখল করে বাড়িঘর তৈরী করছেন। ইউনিয়নের উপ-সহকারী ভূমি কর্মকর্তা(তহশীলদারের কারসাজিতে ‘ভূল নামজারী’র ফাঁসে জড়িয়ে সর্বশান্ত হয়ে পরেছেন তিনি এবং তার পরিবার।
অভিযোগ প্রসঙ্গে ফরিদ উদ্দিন মাষ্টার জানান, তিনি ওই খতিয়ানে তার খরিদা জমিতে নির্মান কাজ করছেন। নুরুল ইসলাম হাওলাদারের জমি জবর দখলের বিষয় সঠিক নয়।
অভিযোগ প্রসঙ্গে চর মানিকা ইউনিয়ন ভূমি অফিসের উপ-সহকারী ভূমি কর্মকর্তা মারুফ হোসেন জানান, ভূল হয়েছে। এ বিষয়ে একটি মিস কেইচ চলমান আছে। যেখানে পূর্ববর্তী মিসকেইচ বাতিল করে ফরিদ উদ্দনের নামে সৃজিত খতিয়ানটি বাতিলের প্রস্তব দেয়া হয়েছে।
সহকারী কমিশনার (ভূমি) আবদুল মতিন খান জানান, এবিষয়য়ে একটি মিস কেইচ চলমান আছে। ভূক্তভোগিদের কাগজ পত্র যাচাই করে ব্যবস্থা নেয়া হবে।





বাংলাদেশে আর কখনো তত্ত্বাবধায়ক সরকার হবে না : তোফায়েল আহমেদ

বাংলাদেশে আর কখনো তত্ত্বাবধায়ক সরকার হবে না : তোফায়েল আহমেদ

ভোলায় অনুষ্ঠিত হলো কাব্যাঙ্গণ আবৃত্তি উৎসব

ভোলায় অনুষ্ঠিত হলো কাব্যাঙ্গণ আবৃত্তি উৎসব

লালমোহন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ঔষধ ও যন্ত্রপাতি  ক্রয়ে নিয়মরক্ষার  টেন্ডার

লালমোহন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ঔষধ ও যন্ত্রপাতি ক্রয়ে নিয়মরক্ষার টেন্ডার

বাংলাদেশের বেষ্ট হসপিটালেটি এন্ড  ট্যুরিজম লিডার হিসাবে স্বীকৃতি পেলেন ভোলার কৃতি সন্তান শাখাওয়াত

বাংলাদেশের বেষ্ট হসপিটালেটি এন্ড ট্যুরিজম লিডার হিসাবে স্বীকৃতি পেলেন ভোলার কৃতি সন্তান শাখাওয়াত

রামপাল বিদ্যুৎকেন্দ্র পরিদর্শন করলেন ভারতীয় হাইকমিশনার

রামপাল বিদ্যুৎকেন্দ্র পরিদর্শন করলেন ভারতীয় হাইকমিশনার

প্রেমের টানে ভোলায় এসে প্রেমিকার বাড়ীতে সৌদি প্রবাসীর বিষপান

প্রেমের টানে ভোলায় এসে প্রেমিকার বাড়ীতে সৌদি প্রবাসীর বিষপান

ভোলায় নানা আয়োজনে জাতীয় নিরাপদ খাদ্য দিবস পালিত

ভোলায় নানা আয়োজনে জাতীয় নিরাপদ খাদ্য দিবস পালিত

বিদ্যুৎ সংযোগে মাছ ধরতে  গিয়ে যুবকের মৃত্যু

বিদ্যুৎ সংযোগে মাছ ধরতে গিয়ে যুবকের মৃত্যু

যুগোপযোগী ও জনবান্ধব রাজস্ব প্রশাসন গড়ে তুলতে সরকার কাজ করে যাচ্ছে : প্রধানমন্ত্রী

যুগোপযোগী ও জনবান্ধব রাজস্ব প্রশাসন গড়ে তুলতে সরকার কাজ করে যাচ্ছে : প্রধানমন্ত্রী

জ্ঞানভিত্তিক সমাজ গঠনে বই পড়ার চর্চা বাড়াতে হবে : রাষ্ট্রপতি

জ্ঞানভিত্তিক সমাজ গঠনে বই পড়ার চর্চা বাড়াতে হবে : রাষ্ট্রপতি

আরও...