অনলাইন সংস্করণ | ভোলা, রবিবার, ২২শে মে ২০২২ | ৮ই জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯


মনপুরা লঞ্চঘাটে পন্টুন না থাকায় যাত্রীদের দুর্ভোগ


বাংলার কণ্ঠ প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ৩রা এপ্রিল ২০২২ রাত ১২:১২

remove_red_eye

২০৫





আকতারুল ইসলাম আকাশ, মনপুরা থেকে ফিরে: ভোলার মনপুরার রামনেওয়াজ ঘাটে পন্টুন না থাকায় ঝুঁকি নিয়ে লঞ্চে ওঠা-নামা করতে হচ্ছে যাত্রীদের। এতে চরম দুর্ভোগ পোহাচ্ছেন তারা। এছাড়া লঞ্চগুলো তীরে ভেড়ানোয় ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে বেড়িবাঁধ।
জানা গেছে, মনপুরার সঙ্গে ভোলা এবং ঢাকার একমাত্র যোগাযোগের মাধ্যম হচ্ছে নৌপথ। তাই এ রুট দিয়েই যাত্রীদের যাতায়াত
করতে হয়। কিন্তু মনপুরা উপজেলার রামনেওয়াজ ঘাটে পন্টুন না থাকায় দিনের পর দিন দুর্ভোগ পোহাচ্ছেন যাত্রীরা।প্রতিদিন ঘণ্টার পর ঘণ্টা খোলা আকাশের নিচে বাঁধের ওপর দাঁড়িয়ে থেকে লঞ্চের জন্য অপেক্ষা করতে হয় যাত্রীদের। অন্যদিকে তাদের লঞ্চ থেকে ওঠা-নামা করতে হচ্ছে ঝুঁকি নিয়ে।যে কারণে, মাঝে মধ্যেই ঘটছে দুর্ঘটনা। বর্ষার আগে পন্টুন স্থাপন করা না হলে লঞ্চে ওঠা-নামা আরও কঠিন হয়ে পড়বে বলে মনে করছেন যাত্রীরা।
ঘাটে অপেক্ষমান কয়েকজন যাত্রী জানান, মনপুরা উপজেলার অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ লঞ্চঘাট রামনেওয়াজ। গত কয়েক মাস ধরে ঘাটে পন্টুন নেই। এতে তাদের দুর্ভোগের সীমা নেই।তারা জানান, আগে এখানে পন্টুন ছিল, তখন যাত্রীদের এমন দুর্ভোগে পড়তে হয়নি। খুব সহজেই যাত্রীরা ওঠা-নামা করতে পারতেন। কিন্তু এখন যেন দুর্ভোগ আর বিড়ম্বনার শেষ নেই। বিশেষ করে নারী ও শিশুদের ভোগান্তির যেন শেষ নেই।
ইন্ডিপেন্ডেট টেলিভিশনের ভোলা জেলা প্রতিনিধি মো. নজরুল হক অনু ও আজকের পত্রিকার লালমোহন উপজেলা প্রতিনিধি মো. মঞ্জুর আলম বলেন, ঢাকাসহ দেশের যে কোন স্থান থেকে মনপুরা যেতে নৌপথ ব্যবহার করতে হয়। দিন দিন পর্যটন দ্বীপ মনপুরামুখী হচ্ছেন মানুষ। এ জন্য যাত্রীদের ভীড় বাড়ছে। মনপুরা থেকে যাতায়াতের জন্য রামনেওয়াজ ঘাটটির গুরুত্ব বাড়ছে। যে কারণে এখানে মানুষের চাপ বাড়ছে। কিন্তু এ নৌপথে বাড়েনি যাত্রীসেবার মান। একদিকে নিরাপদ নৌযান সঙ্কট, অন্যদিকে পথে পথে ভোগান্তি। লঞ্চগুলোর চলাচলের কোনো নির্দিষ্ট সময় সীমা নেই। সেই সঙ্গে নতুন করে আবার পন্টুন না থাকায় ভোগান্তি বেড়েছে যাত্রীদের।মনপুরা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান সেলিনা আক্তার চৌধুরী বলেন, পন্টুন না থাকার কারণে বাঁধ ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। কারণ লঞ্চগুলো সরাসরি বাঁধের ওপর ভিড়ছে।তিনি বলেন, রামনেওয়াজ ঘাটে আগে পন্টুন ছিল, কয়েক মাস আগে সেই পন্টুনটি অন্যত্র সরিয়ে নেওয়া হয়েছে। আমরা তাদের বারবার আগের স্থানে পন্টুন ফিরিয়ে আনতে বলেছি। এখনও তারা পন্টুন দেয়নি। এতে প্রতিদিনিই বাঁধ ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে।
এ ব্যাপারে ভোলা বিআইডবিøটিএর সহকারী পরিচালক মো. শহিদুল ইসলাম বলেন, রামনেওয়াজ ঘাটে আগে পন্টুন ছিল। সেখানে কিছুদিন আগে একটি নতুন পন্টুন দেয়া হয়েছে।কিন্তু সেটি রামনেওয়াজ ঘাট থেকে কিছুটা দূরে হওয়ায় সেখানে লঞ্চ ভিড়তে সমস্যা সৃষ্টি হচ্ছে। তাই আগের স্থানেই পন্টুনবিহীনঘাটে লঞ্চগুলো নোঙর দিচ্ছে। আমরা দ্রæতই ঘাটে পুনরায় পন্টুনটি স্থাপন করব।