অনলাইন সংস্করণ | ভোলা, মঙ্গলবার, ১৮ই জানুয়ারী ২০২২ | ৫ই মাঘ ১৪২৮


তজুমদ্দিনে সড়কে বালি পাথরের স্তুপ ফেলে রাখায় জনভোগান্তি চরমে


তজুমদ্দিন প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ২৩শে ডিসেম্বর ২০২১ রাত ০৯:৫৪

remove_red_eye

৫৩



  তজুমদ্দিন প্রতিনিধি : ভোলার তজুমদ্দিনে সড়ক ও জনপথ বিভাগের অধীনে নির্মানাধীন রাস্তা সংস্কার কাজে ব্যবহৃত পাথর ও বালি রাস্তার উপর ফেলে রাখায় জণদূর্ভোগে পড়েছে পথচারীরা। উপজেলার সদর রোডে ২০০ মিটার কাজের সংস্কারের জন্য ঢাকার ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান মেসার্স আমিনুল হক রাস্তায় প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করে কাজের এসব সামগ্রী স্তুপ করে রেখেছে। এব্যাপারে পথচারী ও ব্যবসায়ীরা বারবার প্রতিকার চেয়েও কোন সুফল পায়নি।
    সুত্রে জানা যায়, প্রায় ৬৪ লক্ষ টাকা ব্যয়ে সড়ক সস্কার কাজের এসব মালামাল প্রায় এক মাস ধরে শহরের প্রধান সড়কের উপর পড়ে আছে। চাঁদপুর মডেল সরকারী প্রাথমিক, চাঁদপুর সরকারী উচ্চ বিদ্যালয় এবং থানার সামনের সড়কে এসব সামগ্রী দীর্ঘদিন ধরে পড়ে আছে। এরফলে বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী এবং থানায় আগত সাহয্যার্থীসহ পথচারী ও যানবাহন চালকরা নানান দুর্ভোগের সম্মূখীন হচ্ছে।
    চাঁদপুর সরকারী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোফাজ্জল হোসেন জানান, কোন অনুমতি ছাড়াই টিকাদারের লোকজন এসব মালামাল স্কুলের সামনে রাখছে। অত্র প্রতিষ্ঠানটি এইবারের এইসএসসি পরীক্ষার ভেন্যু হিসেবে ব্যবহৃত হচ্ছে। পরীক্ষা চলাকালীন রাস্তায় এভাবে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টির কারনে অভিভাবক ও পরীক্ষার্থীদের চরম হযরানী হতে হচ্ছে। প্রায়শই এখানে ছোট ছোট দুর্ঘটনা ঘটছে।  বিষয়টি কর্তৃপক্ষের নজর দেয়া উচিৎ।
    ব্যবসায়ী মোঃ আরিফ জানান, রাস্তা সংস্কারের নামে ভোগান্তি হচ্ছে বেশি। ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের এসব মালামাল নিকটবর্তী খোলা জায়গায় রাখা যেতো। প্রতিদিন এখানের বালি ও ময়লা বাতাস উড়ে পরিবেশ দুষনসহ ব্যবসায়ী ও পথচারীদের নাভিশ্বাস উঠেছে।
    এব্যাপারে জানতে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের কাজের তদারকী এক কর্মকর্তার সাথে কথা বলতে চাইলে তিনি কথা বলতে অস্বীকার জানান।
     বিভাগের  সড়ক ও জনপথ বিভাগের এসও আতিকুর রহমান জানান, সড়কে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টির সুযোগ নেই। তবে দুইটি প্যাকেজে কাজ চলমান থাকায় এই সামগ্রীগুলো কে বা কারা রেখেছে তা খোঁজ নিবেন বলে জানান।