অনলাইন সংস্করণ | ভোলা, শুক্রবার, ১৮ই জুন ২০২১ | ৪ঠা আষাঢ় ১৪২৮


দৌলতখানে জমির বিরোধ নিয়ে হামলা মারধর : আহত-৬


দৌলতখান প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ২রা জুন ২০২১ রাত ১০:৩৬

remove_red_eye

৫৩


 দৌলতখান প্রতিনিধি :  ভোলার দৌলতখানে জমিজমা সংক্রান্ত বিরোধের জেরে একই পরিবারের নারীসহ ছয়জনকে পিটিয়ে আহত করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। অভিযুক্তরা হলেন, উপজেলার চরখলিফা ইউনিয়নের ৯ নং ওয়ার্ডের মৃত নুরুল ইসলামের ছেলে গিয়াসউদ্দিন (২৮), ফখরুল (২৮), সুলতান আহাম্মেদের ছেলে মামুন (২৭) ও হারুন (২৯)। আহতরা হলেন, একই এলাকার মোঃ হাতেম (৬০), স্ত্রী ফিরোজা খাতুন (৫০), তার ছেলে ফিরোজ (২৮), মিরাজ (২৬) মেয়ে হাজেরা (৩৫), ও খাদিজা (২০)। আহতদের মধ্যে হাতেম ও ফিরোজ ভোলা সদর জেনারেল হাসপাতালে ও বাকীরা দৌলতখান হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে। উপজেলার চরখলিফা ইউনিয়নের ৯ নং ওয়ার্ডে মঙ্গলবার সন্ধ্যায় দফায় দফায় এ মারধরের ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় উভয়পক্ষে থানায় পাল্টাপাল্টি অভিযোগ দায়ের করেছে।

হাসপাতালে চিকিৎসাধীন মোঃ হাতেম জানান, দীর্ঘদিন ধরে প্রতিপক্ষ গিয়াসউদ্দিন ও মামুন গংদের সঙ্গে আমাদের দখলীয় জমি নিয়ে বিরোধ চলে আসছে। এনিয়ে গ্রাম্যভাবে একাধিকবার সালিশ বৈঠক হয়েছে। বৈঠকে আমরা জমি পাওনা হই। পাওনা জমিতে বাউন্ডারি ওয়াল নির্মাণ করে রাখি। প্রতিপক্ষ গিয়াসউদ্দিন ও মামুন গংরা মঙ্গলবার সন্ধায় নির্মাণাধীন বাউন্ডারি ওয়াল ভেঙে পেলার চেষ্টা করে। এতে বাঁধা দিলে গিয়াসউদ্দিন, ফখরুল , মামুন ও হারুন আমাকে বেধড়ক মারধর করে। খবর পেয়ে   স্ত্রী ফিরোজা খাতুন , ছেলে ফিরোজ , মিরাজ, মেয়ে হাজেরা , ও খাদিজা এগিয়ে আসলে তাদেরও মারধর করে। মারধর শেষে প্রতিপক্ষ গিয়াসউদ্দিন ও মামুন গংরা আমাদের বসতঘরে ঢুকে ঘরের আসবাবপত্র ভাংচুর করে। এদিকে স্থানীয়রা আহতদের উদ্ধার করে হাসপাতালে নেওয়ার সময়ও প্রতিপক্ষ লোকজন তাদের মারধর করে বলে অভিযোগ করেন হাতেম।
অন্যদিকে গিয়াসউদ্দিন জানান, আমরা তাদের কোন মারধর করেনি। উল্টো তারা আমাদের মারধর করেছে। তাদের মারধরে আমাদের পাঁচজন লোক আহত হয়েছে বলে তিনি দাবী করেন। হাতেম গংদের আনীত অভিযোগ মিথ্যা ও ভিত্তিহীন বলেন গিয়াসউদ্দিন জানান।

দৌলতখান থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) বশির আহাম্মেদ খান জানান, এ ঘটনায় উভয়পক্ষ থানায় পাল্টাপাল্টি অভিযোগ দায়ের করেছে। তদন্ত সাপেক্ষে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।