অনলাইন সংস্করণ | ভোলা, শুক্রবার, ১৮ই জুন ২০২১ | ৪ঠা আষাঢ় ১৪২৮


ইরানের ‘সবচেয়ে বড়’ যুদ্ধজাহাজটি ডুবে গেছে


বাংলার কণ্ঠ ডেস্ক

প্রকাশিত: ২রা জুন ২০২১ রাত ০৮:৪১

remove_red_eye

৪৩

বাংলার কণ্ঠ ডেস্ক : ইরান নৌবাহিনীর বৃহত্তম যুদ্ধজাহাজটি ডুবে গেছে। মঙ্গলবার (১ জুন) দিবাগত রাতে ওই জাহাজে আগুন লাগে। দমকলকর্মীদের টানা ২০ ঘণ্টা প্রচেষ্টার পরেও রক্ষা করা যায়নি জাহাজটি। বুধবার (২ জুন) জাহাজটি হরমুজ প্রণালীর পার্শ্ববর্তী এলাকায় ডুবে যায়।

বুধবার ইরানের তাসনিম নিউজ নামক সংবাদমাধ্যমে এ খবর প্রচার করে। ইরানের সেনাসূত্রের বরাত দিয়ে অন্যান্য আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমও খবরটি প্রকাশ করেছে। ঠিক কী কারণে জাহাজটিতে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটলো তা এখনও জানা যায়নি।

তাসনিম নিউজের খবরে বলা হয়, খার্গ নামক জাহাজটির সর্বত্র আগুন ছড়িয়ে পড়ে। সেনাবাহিনীর দমকলকর্মীরা ২০ ঘণ্টা ধরে আগুন নেভানোর চেষ্টা করে। তবে সব প্রচেষ্টা ব্যর্থ হওয়ায় জাহাজটি ডুবে যায়।

বার্তাসংস্থা রয়টার্সের খবরে বলা হয়, ওই জাহাজের সকল ক্রু নিরাপদ রয়েছেন। ইরান সেনাবাহিনীর সূত্রের বরাত দিয়ে বলা হয়, ওই জাহাজটি তখন এক প্রশিক্ষণ মহড়ায় অংশ নিয়েছিল।

ইরানের রাষ্ট্রীয় অন্যান্য সংবাদমাধ্যমের খবরে জানা গেছে, মঙ্গলবার দিবাগত রাত আড়াইটার দিকে জাহাজটিতে আগুন লাগে। জাহাজটি তখন ইরানের সমুদ্রবন্দর জাস্কের পার্শ্ববর্তী এলাকায় অবস্থান করছিল। এ অঞ্চলটি ইরানের রাজধানী তেহরান থেকে অন্তত ৭৯০ মাইল দূরে এবং ওমান উপসাগর ও হরমুজ প্রণালীর কাছাকাছি।

জানা গেছে খার্গ নামক ওই জাহাজটি ইরান নৌবাহিনীর বহরে সবচেয়ে বড় যুদ্ধজাহাজ। এ যুদ্ধজাহাজটি সমুদ্রে নিজে লড়াই করার পাশাপাশি অন্যান্য যুদ্ধজাহাজকেও জ্বালানি, অস্ত্র বা অন্যান্য রশদ সরবরাহ করার ক্ষমতা রাখে। এ জাহাজটি ভারী পণ্য যেমন কার্গো বা একাধিক হেলিকপ্টার বহন করতে পারে। ইরানের যুদ্ধজাহাজের বহরে এরকম উচ্চক্ষমতাসম্পন্ন জাহাজের সংখ্যা হাতেগোনা। এ জাহাজটি ডুবে যাওয়ায় দেশটি সমুদ্রে আধিপত্য বিস্তারে কিছুটা পিছিয়ে পড়বে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

জানা গেছে এ যুদ্ধজাহাজটি ১৯৭৭ সালে ব্রিটেনে তৈরি হয়েছিল। তবে ১৯৭৯ সালে ইসলামিক বিপ্লবের জাহাজটির ইরানে যাওয়া অনিশ্চিত হয়ে পড়ে। দুই পক্ষের দীর্ঘ দরকষাকষির পর ১৯৮৪ সালে খার্গ ইরান নৌবাহিনীর বহরে যুক্ত হয়।

খার্গের ডুবে যাওয়ায় সামরিক কৌশলগত দিক থেকে তেহরান কিছুটা চাপে পড়বে বলে ধারণা করা হচ্ছে। কেননা মাত্র একদিন আগে মঙ্গলবার ইরানের একটি যুদ্ধবিমান দুর্ঘটনায় দুই পাইলটের মৃত্যু হয়ে। সূত্র : সারা বাংলা