অনলাইন সংস্করণ | ভোলা, শনিবার, ১৭ই এপ্রিল ২০২১ | ৪ঠা বৈশাখ ১৪২৮


ভাসুরের কু-প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় দৌলতখানে গৃহবধূকে পিটিয়ে রক্তাক্ত


বাংলার কণ্ঠ ডেস্ক

প্রকাশিত: ২৮শে ফেব্রুয়ারি ২০২১ রাত ১১:০৯

remove_red_eye

৬১

দৌলতখান সংবাদদাতা : ভোলার দৌলতখানে সাথী (২৪)নামে এক গৃহবধূকে শ^শুরবাড়িতে বেধরক পিটিয়ে গুরুতর আহত করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। গতকাল শনিবার দিবাগত রাত সাড়ে ১১টার দিকে উপজেলার চরখলিফা ইউনিয়নের কলাকোপা গ্রামের সরকার বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে। রোববার সকালে স্থানীয়রা গৃহবধূকে আহত অবস্থায় উদ্ধার করে দৌলতখান উপজেলা স্বাস্থ্য কমপেক্সে ভর্তি করেন।
আহত গৃহবধূ জানায়, ৭ বছর আগে চরখলিফা ইউনিয়নের কলাকোপা গ্রামের সরকার বাড়ীর মৃত হোসেনের ছেলে ইলিয়াছের সাথে প্রেমের সম্পর্কের পর পারিবারিক ভাবে তারা বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হয়। এরই মধ্যে তাদের সংসারে এক ছেলে ও এক মেয়ের জন্ম হয়। অভাব অনটনের কারণে স্বামী ইলিয়াস হোসেন ঢাকায় শ্রমিকের কাজ করেন। সংসারের বেহাল অবস্থার কারণে সে নিজেও বাড়ীতে গরু পালন ও চাষাবাদের কাজ করে।
স্বামীর অবর্তমানে নানা অযুহাতে ভাসুর মোঃ জব্বার হোসেন প্রায়ই তাকে মারধর করতো। ভাসুর জব্বার বিভিন্ন সময় তাকে শারীরিক সম্পর্কে জড়ানোর জন্য কু-প্রস্তাব দিয়ে আসছিল। ভাসুরের কু-প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় মিথ্যা অপবাদ দিয়ে শনিবার রাতে দরজা ভেঙে ঘরে ঢুকে তাকে লাঠি দিয়ে এলোপাতাড়ি পিটিয়ে গুরুতর আহত করে। এতে তার শরীরের বিভিন্ন জায়গায়  ফুলা-জখম হয়।
বর্তামানে ওই গৃহবধূ দৌলতখান হাসপাাতলে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। এ ব্যাপারে অভিযুক্ত জব্বার হোসেনের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বিষয়টি অস্বীকার করেন। দৌলতখান থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা(ওসি) মোঃ বজলার রহমান জানান, এ বিষয়ে লিখিত অভিযোগ পাওয়া গেলে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।