অনলাইন সংস্করণ | ভোলা, মঙ্গলবার, ১৯শে জানুয়ারী ২০২১ | ৫ই মাঘ ১৪২৭


দৌলতখানে সেই অধ্যক্ষ জসিম দৌঁড়ে পালালেন


দৌলতখান প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ১১ই জানুয়ারী ২০২১ রাত ১০:৩৬

remove_red_eye

১৬৬




দৌলতখান প্রতিনিধি : ভোলার দৌলতখানে জয়নাল আবেদিন আলীম মাদরাসার শিক্ষক হাবিবুল্যাহকে দফায় দফায় মারধর করার অভিযোগ উঠেছে ওই মাদরাসার অধ্যক্ষ আবদুর রহিম জসিমের বিরুদ্ধে। এ ব্যাপারে হাবিবুল্যাহ নিজে বাদী হয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবরে দুই দফায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। ঘটনার প্রতিবাদে শিক্ষক কর্মচারীগণ বৃহস্পতিবার দৌলতখান বাজারের দক্ষিণ মাথায় সেলিম চত্বরে মানববন্ধনও করেছেন। মৌলভী হাবিবুল্যাহ ওই মাদরাসার ইবতেদায়ী শাখার প্রধান শিক্ষক। এবিষয়ে দৈনিক বাংলার কণ্ঠসহ একাধিক গনমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশ হয়েছে। পরে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) কাওছার হোসেন উভয়পক্ষকে নিয়ে সোমবার বিকাল ৩ টায় উপজেলা মিলনায়তনে শুনানির দিন ধার্য করেন। তারই ধারাবাহিকতায় বিকালে উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে উপজেলা চেয়ারম্যান মনজুর আলমখাঁন, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কাওছার হোসেন, উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার শাহাজাহান আলী শেখ, মাদ্রাসার ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি ও ইউপি চেয়ারম্যান মেহেদী মাসুদ মুকু খাঁন, ম্যানেজিং কমিটির অন্যান্য সদস্য ও ভুক্তভোগী শিক্ষক হাবিবুল্যাহ এবং অভিযুক্ত অধ্যক্ষ মাওলানা আবদুর রহিম জসিমকে নিয়ে শুনানিতে বসেন। বসারপর দুইজন শিক্ষকের সাক্ষী শোনা শেষে অভিযুক্ত অধ্যক্ষ মাওলানা আবদুর রহিম জসিম সেখান থেকে দৌঁড়ে পালান।
এবিষয়ে দৌলতখান উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কাওছার হোসেন জানান, শুনানি চলাকালে অধ্যক্ষ মাওলানা আবদুর রহিম জসিম হঠাৎ করে বলে উঠেন ওয়াস রুমে যাবে। তার হাটার গতি সন্ধেহ হলে একজন লোককে দেখতে পাঠাই। তিনি দেখলেন অধ্যক্ষ জসিম সজোরে এক দৌঁড় দিয়ে পালাচ্ছেন। ইউএনও কাওছার আরও বলেন, এবিষয়ে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।    
জয়নাল আবেদিন আলীম মাদ্রাসার ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি ও ইউপি চেয়ারম্যান মেহেদী মাসুদ মুকু খাঁন বলেন, সাক্ষী গ্রহণের একপর্যায়ে হঠাৎ করে অধ্যক্ষ জসিম সেখান থেকে দৌঁড়ে পালিয়েছেন। এসময় উপজেলা চেয়ারম্যান, ইউএনও, মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসারসহ ম্যানেজিং কমিটির অন্যান্য সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।