অনলাইন সংস্করণ | ভোলা, বুধবার, ২৫শে নভেম্বর ২০২০ | ১১ই অগ্রহায়ণ ১৪২৭


ভোলায় আরো দুই চাঁদাবাজ সাংবাদিকের খোঁজে মাঠে পুলিশ 


বাংলার কণ্ঠ প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ১৮ই নভেম্বর ২০২০ রাত ১২:১৬

remove_red_eye

৭৪৮

বাংলার কণ্ঠ প্রতিবেদক: ভোলায় বিয়ে বাড়িতে গিয়ে চাঁদা দাবির ঘটনায় আটক দুই সাংবাদিককে গ্রেপ্তারের পর মঙ্গলবার দুপুরে আদালতে হাজির করা হলে আদালত তাদের জামিন নামঞ্জুর করে জেল হাজতে প্রেরণ করেছে। এর আগে সকালে শানু সর্দার বাদি হয়ে গ্রেপ্তার হওয়া দুই কথিত সাংবাদিক অর্জুন চন্দ্র দে ও তার সহযোগী রাসেলসহ অজ্ঞাত আরো দুই জনকে আসামী করে ভোলা মডেল থানায় একটি চাঁদাবাজির মামলা করেন। তবে ওই মামলায় বিয়ে বাড়ি থেকে প্রথমে চাঁদা নেয়া দুই ভূয়া সাংবাদিকের নাম উল্লেখ করা হয় নি। পুলিশ বলছে মামলার সূত্র ধরে অজ্ঞাত ওই দুই জনকে গ্রেপ্তারে অভিযান শুরু হয়েছে। এদিকে কথিত দুই সাংবাদিকের গ্রেপ্তারের খবর ছড়িয়ে পড়লে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে নানা প্রতিক্রিয়া দেখা যায়। অনেক ভুক্তভুগি ওই চাঁদাবাজ সাংবাদিকের অপকর্মের তথ্য কমেন্টে প্রকাশ করে। এসময় অনেকেই ফেসবুকে মামলায় অজ্ঞাত অপর দুই চাঁদাবাজ সাংবাদিক পারভেজ ও সুমনের নাম এবং ছবি প্রকাশ করেন। সেখানে প্রকাশ পায় পারভেজ এর আগেও এসিল্যান্ড অফিসের নাজিরের কাছে চাঁদা দাবি করায় তার বিরুদ্ধে ভোলা থানায় মামলা হয়। 

 

এর আগে সোমবার ভোলা সদর উপজেলার ধনিয়া ইউনয়নের স্লুইজগেইট এলাকায় শানু সর্দারের  মেয়ের বিয়ের অনুষ্ঠানে গিয়ে স্থানীয় অনলাইন পত্রিকার সাংবাদিক পরিচয় দিয়ে সুমন ও পারভেজ বাল্য বিয়ে হচ্ছে বলে ৫ হাজার টাকা দাবী করেন। এ সময় স্থানীয়দের মধ্যস্থতায় ১৫০০ টাকা তাদের দিলে তারা চলে যায়। এ ঘটনার কিছু সময় পর কথিত সাংবাদিক অজুর্ন চন্দ্র দে ও তার সহযোগী ক্যামেরাম্যান রাসেল গিয়ে একই কথা বলে ৫ হাজার টাকা চাঁদাদাবী করে। টাকা না দিলে তারা পুলিশকে জানিয়ে দিবে বলেও ভয়ভীতি প্রদর্শন করে। এসময় শানু সর্দার জানান তার মেয়ের বাল্য বিয়ে হচ্ছে না। তার পরও তারা ভয়ভীতি দেখিয়ে টাকা দাবী করতে থাকে। তখন স্থানীয়রা ওই দুই সাংবাদিকে আটকে রেখে ৯৯৯ নাম্বারে ফোন দেয়। পরে পুলিশ রাত ৯ টার দিকে কথিত ওই ২ সাংবাদিককে আটক করে ভোলা মডেল থানায় নিয়ে আসেন। 

 

এঘটনায় ওই কথিত দুই সাংবাদিক অর্জুন চন্দ্র দে ও তার সহযোগী রাসেলসহ চার জনকে আসামী করে ভোলা মডেল থানায় ৪৪৭, ৩৩৮ ও ৩৪ ধারায় একটি মামলা করা হয়। মামলা নং ৩৬/১৭-১১-২০২০। 

 

এদিকে মঙ্গলবার সকালে মামলা হওয়ার পর গ্রেপ্তার দুই কথিত সাংবাদিককে আদালতে হাজির করা হলে আদালত তাদের জামিন না মঞ্জুর করে জেল হাজতে প্রেরণ করে। 

 

ভোলা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোঃ এনায়েত হোসেন জানান, মামলার অজ্ঞাত অপর দুই চাঁদাবাজ সাংবাদিকে গ্রেপ্তারে পুলিশ মাঠে নেমেছে। এর সাথে জড়িত কাউকে ছাড় দেয়া হবেনা বলেও জানান তিনি।