অনলাইন সংস্করণ | ভোলা, বুধবার, ৩০শে সেপ্টেম্বর ২০২০ | ১৫ই আশ্বিন ১৪২৭


চরফ্যাশন হাসপাতালে শিশুকে ধর্ষনের চেষ্টা, আটক-২


চরফ্যাসন প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ২৩শে আগস্ট ২০২০ রাত ১১:৩৮

remove_red_eye

৭৬





চরফ্যাশন  প্রতিনিধি : ভোলার চরফ্যাশন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ৯ বছরের শিশুকে ধর্ষণের চেষ্টা করা হয়। ওই শিশু তার চিকিৎসাধী খালাতো বোনকে খাবার নিয়ে দেখতে গেলে  হাসপাতালের এক দালাল ও ফার্মিসীর কর্মচারী এ ঘটনা ঘটিয়েছে। এ ঘটনায়  চরফ্যাশন  থানা পুলিশ দুইজনকে গ্রেপ্তার করেছেন। রবিবার (২৩ আগস্ট) দুপুরে নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে শিশুটির পরিবার মামলা হলে আসামিদের আদালতে প্রেরণ করা হয়।

পুলিশ ও হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে, গত শনিবার সন্ধ্যায় হাসপাতাল সংলগ্ন মেডিনোভা ফার্মিসীর কর্মচারী ও রোগী ধরার দালাল আসলামপুর ইউনিয়ন ১নং ওয়ার্ডের জামালের ছেলে রিপন (২৮) ও আল-মদিনা ফার্মেসীর কর্মচারী ও রোগী ধরার দালাল চর-আফজাল ১নং ওয়ার্ডের আব্দুল করিমের ছেলে তামিম মিলে হাসপাতালের ৪র্থ তলা থেকে ৫ম তলার নির্জন স্থানের ফ্লোরে নিয়ে শিশুটিকে ধর্ষণের চেষ্টা চালায়। এসময় ওই শিশুটির ডাক চিৎকারে স্থানীয়রা এসে শিশুটিকে উদ্ধার করে লম্পট দুইজনকে আটক করে। পরে স্থানীয় দুই ফার্মেসীর মালিক মঞ্জু ও আব্দর রবের নেতৃত্বে ৪০ হাজার টাকায় রফাদফা করে ২০হাজার টাকায় তামিমকে ছেড়ে দিয়ে রিপনকে আটক করে রাখে। বিষয়টি স্থানীয় সংবাদকর্মীরা সংবাদ পেয়ে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সেও টিএসও ডাক্তার শোভন কুমার বোসাককে অবগত করেন। এসময় তিনি থানা পুলিশকে বিষয়টি জানালে পুলিশ লম্পট রিপনকে রাত সাড়ে ৮টায় আটক করে থানায় নিয়ে আসে। এবং ২০ হাজার টাকায় রফাদফায় ছেড়ে দেয়া তামিম (২১) কে ধরার জন্য অভিযান চালিয়ে রাত ১১টায় গ্রেপ্তার করে। এছাড়াও অর্থ লেনদেনের সঙ্গে সম্পৃক্ত থাকায় রাব্বী (২২) ও তামিমের ভাই নেওয়াজ শরীফ (২৫) কে জিজ্ঞাসাবাদেও জন্য থানায় আনা হয়েছে। এঘটনায় ওই শিশুটির খালু ফজলুর রহমান বলেন, ওই শিশুটি বাসা থেকে খাবার নিয়ে চিকিৎসাধীন খালাতো বোনকে দেখতে আসলে শনিবার সন্ধ্যায় এঘটনা ঘটে। আমরা বিষটির সঠিক বিচার দাবি করছি।
 চরফ্যাশন  থানার অফিসার ইনচার্জ মনির হোসেন মিয়া জানান, হাসপাতালের টিএসও এর অভিযোগের ভিত্তিতে রিপনকে রাত সাড়ে ৮টায় ও তামিমকে ১১টায় গ্রেপ্তার করে রবিবার দুপুরে তাদের আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে।