অনলাইন সংস্করণ | ভোলা, শুক্রবার, ২রা অক্টোবর ২০২০ | ১৬ই আশ্বিন ১৪২৭


লালমোহনে জমির বিরোধ নিয়ে অন্তসত্তা গৃহবধুকে কুপিয়ে জখম


লালমোহন প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ১৬ই আগস্ট ২০২০ রাত ১০:০৫

remove_red_eye

১১৯




লালমোহন প্রতিনিধি : লালমোহনে জমির বিরোধের জের ধরে অন্তসত্তা গৃহবধুসহ ৩জনকে পিটিয়ে ও কুপিয়ে আহত করেছে প্রতিপক্ষরা। আহতরা লালমোহন হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য ভর্তি হলে উল্টো তাদের নামে মামলা দিয়ে হয়রানী করে। মামলায় ৩ শিশুকেও আসামী করা হয়েছে।  মামলা ও হামলার ভয়ে লালমোহন হাসপাতাল ছেড়ে তজুমদ্দিন উপজেলা হাসপাতালে ভর্তি হয় তারা। উপজেলার কালমা ইউনিয়নের ডাওরী বাজারের দক্ষিণ পাশে গত ১০ আগষ্ট এ ঘটনা ঘটে।
অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, ডাওরীহাট সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আঃ আলিমের ভাই শাজাহানের সাথে জমি নিয়ে বিরোধ চলে আসছে তাদের চাচাতো বোন জেসমিনের সাথে। জেসমিনের স্বামী মোঃ কুদ্দুস ঢাকা ব্যবসা করে। বাড়িতে জেসমিন ১ ছেলে সন্তান নিয়ে বসবাস করে। সে বর্তমানে অন্তঃস্বত্তা। তা সত্তে¡ও গত ১০ আগষ্ট বেলা সাড়ে ১২ টার দিকে আঃ আলিমসহ, ইলিয়াস, নাজিম, নোমান, আব্বাস, শাজাহান, শাহাবুদ্দিন শাফু, আঃ রহিম, রাকিব ও সোহাগ জেসমিনের বাড়িতে গিয়ে মারপিট শুরু করে জেসমিনকে। জেসমিনের মাথায় আঘাত করলে তার মাথা ফেটে যায়। এসময় তাকে বাঁচাতে জেসমিনের আত্বীয় সফিউল্যাহ ও মনিরুল তাদের বাঁচাতে গেলে তাদেরও মারপিট করে আহত করে। আহতদের লালমোহন হাসপাতালে ভর্তি করলে মামলার ভয়ে তড়িগরি করে ওইদিনই অন্তসত্ত¡া আহত জেসমিন, মনিরুল, সফিউল্যাহসহ অন্তত ১০জনকে আসামী করে মামলা করে হামলাকারীরা। এ মামলায় শাহিন, নাইম ও আইয়ুব আলী নামে ৩ শিশুকে আসামী করা হয়েছে। তাদের বয়স মামলায় ১৬ ও ১৭ উল্লেখ করলেও প্রকৃত বয়স আরো কম। মামলার পর জেসমিনদের হুমকি ধামকি দেওয়া হয়। তাদের ভয়ে জেসমিনসহ আহতরা লালমোহন হাসপাতাল ছেড়ে তজুমদ্দিন গিয়ে ভর্তি হয়। পরে ঘটনার ২দিন পরও লালমোহন থানায় মামলা করতে না পেরে জেসমিন ভোলা কোর্টে গিয়ে আঃ আলিমসহ হামলাকারীদের বিরুদ্ধে মামলা করে। এরপরও হুমকি অব্যাহত আছে। তাদের ভয়ে আত্বগোপন করে আছে জেসমিন ও তার পরিবারের লোকজন।
এ ব্যাপারে প্রধান শিক্ষক আঃ আলিম জানান, আমার বড় ভাইয়ের সাথে জমি নিয়ে জেসমিনদের সাথে বিরোধ আছে। তাদের সাথে কি হয়েছে আমি জানি। আমি ওই দিন ঘটনাস্থলে ছিলাম না।