অনলাইন সংস্করণ | ভোলা, রবিবার, ২০শে সেপ্টেম্বর ২০২০ | ৫ই আশ্বিন ১৪২৭


ভোলার ইলিশা ঘাটে বিধস্ত পন্টুনের ঝুঁকিপূর্ন ব্যবহার: দুই দিনে আহত-২০


বাংলার কণ্ঠ প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ৮ই আগস্ট ২০২০ রাত ১১:১৩

remove_red_eye

২১৭



বাংলার কন্ঠ প্রতিবেদক : ভোলার ইলিশা রুটে দিন দিন আগে ঝড়ে ও জলোচ্ছা¦সে বিধস্ত ওই ঘাটের লঞ্চ পন্টুন ও জেটি ঝুঁকিপূর্ন অবস্থায় রয়েছে। ওই ঝুঁকিপূন পন্টুন ও জেটি ব্যবহার করছে শত শত যাত্রী। গত দুই দিনে পড়ে গিয়ে আহত হয়েছেন কম পক্ষে ২০ জন। তবু যাত্রীরা জীবনের ঝুঁকি নিয়ে লঞ্চে ওঠার প্রতিযোগিতায় নামে। ওই সব বিষয় দেখভালের দায়িত্বে থাকা বিআইডিবøউটিএ’র পরির্দশক মোঃ জসিম উদ্দিন ওই ঘাটে আবস্থান করলেও তিনি থাকেন নিশ্চুপ। এমন অভিযোগ স্থানীয়দের। অভিযোগ রয়েছে প্রতি লঞ্চ থেকে তার জন্য সম্মানী বরাদ্দ রয়েছে। তাই অতিরিক্ত যাত্রীবহনে তার কোন বাধা নেই।
 জেলা নদী বন্দর সহকারী পরিচালক মোঃ কামরুজ্জামান জানান, এমন অভিযোগ পেয়ে পরিদর্শক মোঃ জসিমকে সর্তক করা হয়েছে। তবে মোঃ জসিম জানান, ঘাটে হাজার হাজার যাত্রীর ভীড় সামাল দেয়া তার পক্ষে সম্ভব ছিল না। একই অবস্থা দেখা যায় পুলিশ ও কোস্টগার্ড সদস্যদের বেলায় দেখা গেছে।  ইলিশা ঘাট দিয়ে ঢাকা ও চট্টগ্রামগামী কর্মজীবী কয়েক হাজার মানুষ  সকালে কর্মস্থলে ফিরে যেতে ভীড় জমায় ।  ওই এলাকায় নেই কোন স্বাস্থ্যবিধি মানার পরিবেশ। সকালে অতিরিক্ত যাত্রী নিয়ে এলটিটি কুতুবদিয়া, সিট্রাক খিজির-৫, এমভি পারিজাতসহ ৭টি লঞ্চ ল²ীপুর মজুচৌধুরী ঘাটের উদ্দেশ্যে ছেড়ে যায়। তেমনি ঢাকার উদ্দেশ্যে ছাড়ে এ্যাডভেঞ্জার-৫, গ্রিণ লাইন ও কর্নফুলী, তাফসির, ফারহান । ১৫টি লঞ্চ ও সিট্রাক চলাচল করছে ইলিশা ঘাট থেকে।