অনলাইন সংস্করণ | ভোলা, শুক্রবার, ২রা অক্টোবর ২০২০ | ১৬ই আশ্বিন ১৪২৭


মনপুরায় অতি জোয়ারে নিন্মাঞ্চল প্লাবতি


মেহেদি হাসান নাহিদ ,মনপুরা প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ৪ঠা জুলাই ২০২০ রাত ১০:০৮

remove_red_eye

১৫২





মেহেদি হাসান নাহিদ, মনপুরা : ভোলার বিচ্ছিন্ন উপকূল মনপুরার নিন্মাঞ্চল পূর্ণিমার প্রভাবে মেঘনার পানি বৃদ্ধি পেয়ে নি¤œাঞ্চল ৩-৪ ফুট জোয়ারের পানিতে প্লাবিত হয়েছে। এদিকে মেঘনার পানি বিপদসীমার ৫ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে বলে জানিয়েছে পাউবো।
এতে করে উপজেলার হাজিরহাট ইউনিয়নের দাসেরহাট গ্রাম ও সোনার চর গ্রাম ও মনপুরা ইউনিয়নের বেড়ীর বাহিরে পূর্ব আন্দির পাড় গ্রাম জোয়ারে প্লাবিত হয়। এছাড়াও মনপুরা উপকূল থেকে বিচ্ছিন্ন বেড়ীবাঁধহীন চরনিজাম ও কলাতলীর চরে ৩-৪ ফুট জোয়ারের পানিতে প্লাবিত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। রাতে ও দিনে দু’বেলা জোয়ারের পানি প্লাবিত হওয়ায় ওই সমস্ত এলাকায় ৩ হাজার মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছে।


সরেজমিনে ঘুরে দেখা যায়, শনিবার সকাল ১০ টায় উপজেলার হাজিরহাট ইউনিয়নের দাসের হাট ও সোনারচর এলাকার নি¤œাঞ্চল ৩-৪ ফুট এলাকা জোয়ারে প্লাবিত হয়েছে। দাসেরহাট জামে মসজিদের ৪ ফুট পানিতে ডুবে রয়েছে। এখানকার গৃহিনীদের ঘরের সামনে প্রবাহিত জোয়ারের পানিতে তালা-বাসন ধুতে দেখা গেছে। এছাড়াও উপজেলার শহর রক্ষা প্রকল্পের উপর দিয়ে জোয়ারের পানি প্রবাহিত হচ্ছে। এছাড়াও মনপুরা ইউনিয়নের বেড়ীর বাহিরে থাকা পূর্ব আন্দিরপাড় গ্রাম ৪ ফুট জোয়ারের পানিতে প্লাবিত হয়েছে।

হাজিরহাট ইউনিয়নের দাসের হাট এলাকার ফাতেমা, রহিম, বাচ্চু ও মনপুরা ইউনিয়নের পূর্ব আন্দিরপাড় এলাকার কামাল, নাহিদ, শাহজাহান সহ অনেকে জানান, শুক্রবারের চেয়ে আজকে ( শনিবার) জোয়ারের পানি বেশি। জোয়ার দিনের চেয়ে রাতে বেশি হয়। তখন ঘরের মধ্যে পানি চলে আসে।

এই ব্যাপারে পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো) ডিভিশন-২ এর উপ সহকারি প্রকৌশলী আবদুর রহমান জানান, মনপুরায় মেঘনার পানি বিপদসীমার ৫ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। বেড়ীর বাহির ও বিচ্ছিন্ন কলাতলীর চর ও চরনিজাম ৩-৪ ফুট জোয়ারে প্লাবিত হয়েছে।