ভোলা, মঙ্গলবার, ৩১শে মার্চ ২০২০ | ১৭ই চৈত্র ১৪২৬

বাংলার কণ্ঠ প্রতিবেদক


১০ই মার্চ ২০২০ রাত ১০:১০




ভোলায় কল বা এসএমএস দিলেই বাসায় পৌঁছে যাবে খাবার

ভোলা সদর


এম শরীফ আহমেদ :  বর্তমান যুগ তথ্য প্রযুক্তির যুগ। এ সময় মানুষ  সকল জিনিস সহজেই পেতে চায়। আমাদের মৌলিক চাহিদার মধ্যে খাদ্য প্রধান। তবে বাসায় খাবার তৈরি করলেও বাহিরের বা রেস্টুরেন্টের মুখরোচক খাবারের প্রতি সবারই আগ্রহ রয়েছে।

অনেকের আবার আগ্রহ না থাকলেও প্রয়োজনে বা ব্যস্ততায় বাহিরের খাবার খেতে হয়। কিন্তু রেস্টুরেন্টের খাবার খেতে অনেক সময় দুশ্চিন্তায় পড়তে হয়।কারণ বেশিরভাগ রেস্টুরেন্টেই বাসি তৈল ব্যবহার করে এবং বাসি খাবার সরবরাহ করে।আবার অনেক যায়গায় ভালো খাবার পাওয়া গেলেও, যাদের খাবার  নেওয়ার মতো লোক থাকেনা তাদের দুশ্চিন্তায় পড়তে হয়।
এমন দুশ্চিন্তার কথা ভেবেই ভোলায় "পেটুক ফুড" নামে প্রতিষ্ঠানটি চালু করেছে খাবার হোমডেলিভারি সার্ভিস। প্রতিষ্ঠানটি স্বাস্থ্যসম্মত উপায়ে বাসায় তৈরী খাবার সরবরাহ করে থাকে। এছাড়াও প্রতিষ্ঠানটি যেকোনো অনুষ্ঠানের খাবারের অর্ডার নিয়ে থাকে।  শীঘ্রই প্রতিষ্ঠানটি সকল রেস্টুরেন্টের খাবার সহ অন্যান্য সকল খাবার হোমডেলিভারি দিবেও বলে জানান। বর্তমানে প্রতিষ্ঠানটি ভোলা সদরে খাবার ডেলিভারি দেয়, পর্যায়ক্রমে সারাদেশে তারা খাবার হোম ডেলিভারি দিবে।    
এ বিষয়ে জানতে চাইলে, "পেটুক ফুড"  সত্ত্বাধিকারী সুমন মুহাম্মাদ ও এম শরীফ আহমেদ বলেন, রাজধানী সহ অন্যান্য বিভাগীয় শহরে হোমডেলিভারি সার্ভিসটি চালু থাকলেও দ্বীপ জেলা ভোলায় এই সার্ভিসটি ছিলো না। গ্রাহকদের সুবিধার জন্য আমরাই প্রথম এই জেলায় সার্ভিসটি চালু করেছি। তারা আরও বলেন, ফেসবুকে আমাদের "পেটুক ফুড" নামে ফেইজ রয়েছে, সেখানে নক করলেই আমাদের সার্ভিসটি সকল ধরনের গ্রাহক সেবা পাবেন। এছাড়াও আমাদের ভোলা শহরে মোবাইল স্টোর রয়েছে । সেখান থেকেও গ্রাহকরা  সেবা গ্রহণ করতে পারবে এবং ০১৯১১-০৬৪৩০৬ এই নাম্বারে ফোন করেও সেবা পাওয়া যাবে ।  "পেটুক ফুড" এর গ্রাহক ইএসডিপি ভোলা জেলা সমন্বয়কারী মোঃ আরিফ হোসাইন তালুকদার বলেন, ভোলার মতো জায়গায় তাদের এ সার্ভিসটি আমার কাছে ভালোই লেগেছে। আমি প্রায় সময় তাদেরকে খাবারের অর্ডার দেই। তাদের সার্ভিস এবং খাবারের মান খুবই ভালো।