ভোলা, সোমবার, ২৪শে ফেব্রুয়ারি ২০২০ | ১২ই ফাল্গুন ১৪২৬

বাংলার কণ্ঠ প্রতিবেদক


২রা ফেব্রুয়ারি ২০২০ রাত ০৮:০৩




শিক্ষা ব্যবস্থায় ইতিবাচক পরিবর্তন সাধিত হয়েছে : স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী

চরফ্যাসন উপজেলা



এম আবু সিদ্দিক, চরফ্যাশন  : জাতীয় সংসদের স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী বলেছেন, শিক্ষা ব্যবস্থায় আজকে অভূতপূর্ব উন্নয়ন এবং ইতিবাচক পরিবর্তন সাধিত হয়েছে। বিশেষ করে প্রত্যান্ত অঞ্চলের বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে একাডেমিক ভবন ও শেখ রাসেল ডিজিটাল ল্যাব স্থাপন করা হয়েছে। বছরের প্রথমে বিনামূল্যে বই তুলে দেয়া হয়েছে। এ পর্যন্ত প্রাক-প্রাথমিক থেকে নমম শ্রেণি পর্যন্ত ৩৫ কোটির বেশি বই বিতরণ করা হয়েছে। ২০০৯ সাল থেকে সরকার গঠনের পর এ পর্যন্ত ২৯৬ কোটি টাকার অধিক বই বিনামূল্যে বিতরণ করা হয়। বিশ্বের আর কোন দেশে এমন নজির নেই। শনিবার ভোলার চরফ্যাশন সরকারি কলেজের সুবর্ণ জয়ন্তী ও নবীব প্রবীণ পূর্নমিলনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।
স্পিকার আরও বলেন, দেশের বড় একটি অংশ হচ্ছে তরুণ প্রজম্ম। সেই তরুণ প্রজম্মই হলো আমাদের মূল শক্তি। যারা আমাদের আগামীতে নেতৃত্বে দিবে। তাই মুজিব বর্ষে জাতির পিতার আদর্শকে বুকে ধারণ করে জাতির পিতার স্বপ্নের সোনার  বাংলাদেশ বিনির্মানে এগিয়ে যাবে, এটাই হোক আমাদের আজকের দিনের প্রত্যায়।
এ সময় স্পিকার বলেন, ক্ষুদা, দারিদ্র, বৈষম্যমুক্ত ও শোষণমুক্ত একটি সোনার বাংলার স্বপ্ন দেখেছিলেন বঙ্গবন্ধু। তার সেই স্বপ্ন বাস্তবায়নের লক্ষে কাজ করে দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি সারা দেশের উন্নয়ন নিয়ে চিন্তা করেন। যে এলাকায় যা কিছু প্রয়োজন, বিশেষ প্রয়োজনে প্রধানমন্ত্রী সেখানে নজর দিয়ে থাকেন।
জাতীয় সংসদের স্পিকার আরো বলেন, ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী আরো বলেন, শিক্ষা ক্ষেত্রে প্রধানমন্ত্রী বিশেষ ব্যবস্থা গ্রহণ করেছেন। মেয়েদেরকে শিক্ষার ক্ষেত্রে এগিয়ে আনার জন্য মেধা  ও  উপবৃত্তি দেয়া হচ্ছে। ১ম শ্রেনী থেকে ৮ম শ্রেনী পর্যন্ত এক কোটি ৪০ লাখ শিক্ষার্থীদের অভিভাবকদের মোবাইল ফোনের মাধ্যমে উপবৃত্তির টাকা পৌছে দেয়া হচ্ছে। সারাদেশে ২৬ হাজার প্রাথমিক বিদ্যারয়কে  জাতীয়করণ করা হয়েছে।
চরফ্যাশন একটি গৌরব উজ্জ্বল ইতিহাসের অংশ উল্লেখ করে ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী আরো বলেন, ১৯৭৩ সালের ১৩ ডিসেম্বর এখানেই পর্দাপন করেছিলেন জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেষ মুজিবুর রহমান। হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙ্গালি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ২৩ বছর দীর্ঘ সংগ্রাম-আন্দোলনের মাধ্যদিয়ে পরাধীনতার শৃঙ্খল থেকে একটি জাতিকে স্বাধীনতার পথ দেখিয়েছিলেন। তার নেতৃত্বে আমরা পেয়েছি আমাদের স্বাধীনতা। সেই জাতির পিতাই তার জীবদ্দশায় স্বাধীন বাংলাদেশে ফিরে আসার পর খুব বেশি সময় পাননি। সাড়ে ৩ বছরে তিনি যুদ্ধ-বিধ্বস্ত একটি দেশকে পূর্নগঠনে কাজ শুরু করেন। তিনি বাংলাদেশের বিভিন্ন জেলায় সফর করেছেন। কাজেই যে এলাকাগুলোতে তিনি গিয়েছিলেন সেই এলাকাগুলোতেও মুজিব বর্ষের অনুষ্ঠান বিশেষভাবে উদযাপন করা হবে।
তরুণ প্রজম্মের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, আগামী ৫০ বছর পর কেমন বাংলাদেশ হবে সেই বিষয়টি এখনি ভাবতে হবে এবং নিজেদের সেই বাংলাদেশেকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার পরিকল্পনা গ্রহণ  করতে হবে। সক্ষমতা তৈরি করতে হবে বলেও যোগ করে ড. শিরীন শারমিন।  চরফ্যাশনের উন্নয়ন ও পর্যটন শিল্পকে আরো এগিয়ে নিতে পরিবেশবান্ধব টেকশই উন্নয়ন পরিকল্পনা নিতে হবে। যাতে কোনভাবে পরিবেশ বা পর্যটনের ক্ষতি না হয়।
চরফ্যাশন সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ কয়ছর আহম্মদ দুলালের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি’র বক্তব্য রাখেন, জাতীয় সংসদের চীপ হুইপ নুর-ই আলম চৌধুরী, যুব ক্রীগা মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সভাপতি ও স্থানীয়  সংসদ সদস্য আবদুল্লাহ আল ইসলাম জ্যাকব।
এর আগে বেুলন উড়িয়ে সুবর্ণ জয়নÍীর শুভ সুচনা করে প্রধান অতিথি। পরে প্রধান ও বিশেষ অতিথিকে সম্মননা ও ক্রেস্ট প্রদান করা হয়। অনুষ্ঠানের দ্বিতীয় পর্যায়ে চলচ্চিত্র অভিনেতা শাকিব খান, রিয়াজ, মৌসুমী, চ্যানেল আই সেরা কন্ঠের কন্ঠ শিল্পী ঝিলিকসহ স্থানীয় শিল্পীদের পরিকেশনায় মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিবেশিত হয়।