অনলাইন সংস্করণ | ভোলা, শনিবার, ২৪শে জুলাই ২০২১ | ৯ই শ্রাবণ ১৪২৮


বোরহানউদ্দিনে ঘুমন্ত স্ত্রীকে গলায় ওড়না পেছিয়ে স্বামীর হত্যার চেষ্টা


বাংলার কণ্ঠ প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ১৭ই জুলাই ২০২১ রাত ১১:২৩

remove_red_eye

১১৮






প্রবাসীর স্ত্রীর সাথে পরকীয়ার প্রেমের অভিযোগ

এম. ছিদ্দিকুল্লাাহ : প্রবাসীর স্ত্রীর সাথে পরকীয়ায় বাধা দেয়ায় মাসুম নিজ স্ত্রী আসমাকে ঘুমের মধ্যে গলায় ওড়না পেছিয়ে হত্যার চেস্টা করার অভিযোগ পাওয়া গেছে।  শুক্রবার গভীর রাতে ভোলার বোরহানুদ্দিন উপজেলার কাছিয়া ইউনিয়নের ৪ নং ওয়ার্ডে কালু হাওলাদার  বাড়ীর মাসুমের বসত ঘরে এমন নির্মম নির্যাতনের ঘটনা ঘটে। বেচে যাওয়া গৃহবধু আসমা স্বামীর নিষ্ঠুর নির্যাতনের বর্ননা দিতে গিয়ে হাসপাতালে কান্নায় ভেঙ্গে পরেন। পরকীয়ার জের ধরে স্ত্রীকে হত্যার উদ্দেশ্যে গভীর রাতে ঘুমন্ত স্ত্রীর গলায় ওড়না পেচিয়ে শ্বাস রোধ করে বুকের উপর চেপে বসেন স্বামী মাসুম। নিয়তির ইশারায় অনেক দস্তা দস্তির পর ওড়নার প্যাচ খুলে বেচে যায় স্ত্রী আসমা। ছোট মেয়ে আদিবার চিৎকার আর আসমার ডাক চিৎকারে পাশ্ববর্তীরা আসলে হত্যার পরিকল্পনাকে দামা চাপা দিতে ঘটনাকে ভিন্ন খাতে প্রবাহিত করে মাসুম। বলে ওর (স্ত্রী আসমা) কাছ থেকে মোবাইল কেড়ে নিতে চাইলে দস্তা দস্তি হয়। এমন নারকীয় ঘটনাকে দামা চাপা দিতে মরিয়া হয় মাসুম। কিন্তু পাশ্ববর্তীদের  থেকে জানাজায় লম্পট মাসুমের পরকীয়ার কাহিনী। বেড়িয়ে আসে থলের বিড়াল। প্রতিবেশী প্রবাসির স্ত্রীর সাথে প্রেমে জড়িয়ে পরেন মাসুম। স্বামী বিদেশে থাকার সুযোগে রাতে বিরাতে মাসুম মেলা মেশা শুরু করে ওই নারীর সাথে। মাসুম ওই প্রবাসীর স্ত্রীকে বিয়ের আশ্বাস দিলে স্বামীকে ডিভোর্স দেয় প্রবাসির স্ত্রী। এমন অবাধ মেলা মেশায় বাধা হয়ে দাড়ায় মাসুমের স্ত্রী আসমা। প্রতিবাদ করলে শুরু হয় নির্যাতন। কারনে অকারনে আসমার উপর নির্মম নির্যাতন চালায় মাসুম। মাসুমের পরিবার দায়সাড়া ভাব নেয় ।এতে গৃহবধু আসমা অসহায় হয়ে পড়লেও ছোট মেয়ে আদিবার জীবনের দিকে তাকিয়ে নিজের সুখ ত্যাগকরে নিয়মিত নির্যাতন সহ্য করে স্বামীর বাড়ীতেই থাকেন আসমা। আসমার পরিবার থেকে বার বার চাপ দিয়ে বিভিন্ন মালামালসহ প্রায় আট লক্ষ টাকা যৌতুক নেয় মাসুম ও তার পরিবার। তারপরও লোভ থামছেনা মাসুমের। বারবার যৌতুকের চাপসহ বিভিন্ন অযুহাতে স্ত্রী আসমাকে বেধরক মারধর করতো মাসুম। কোন ভাবেই স্ত্রী আসমাকে তাড়াতে না পেরে অবশেষে হত্যার পরিকল্পনা করে মাসুম। ভোলা সদর হাসপাতালের সার্জারী ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন আসমা সাংবাদিকদের এসব তথ্য জানান।
স্থানীয়রা জানায়, মাসুম বিয়ে পাগল। সে পূর্বেও একাধিক বিয়ে করেছে। প্রথমে নিজ বাড়ীর এক মেয়েকে দিয়ে বিয়ের যাত্র শুরু করে। প্রবাসির স্ত্রীর টাকা লেনদেন করতে গিয়ে পরোকিয়ায় জড়িয়ে পরে মাসুম।
আসমার পারিবারিক সুত্রে জানাযায়,গত ৯ বছর আগে লালমোহন উপজেলার কালমা গ্রামের মুসমান বাড়ীর মৃত মজিবলের মেয়ে আসমার সাথে বোরহাউদ্দিন উপজেলার কাচিয়া কালু হাওলাদার বাড়ীর সাহাজ্জলের ছেলে মাসুমের সাথে পারিবারিকভাবে  বিয়ে হয় । বিয়ের পর তাদের একটি কন্যা সন্তান জন্ম হয় নাম আদিবা। বিয়ের পর থেকে মাসুম বিভিন্ন সময় বিভিন্ন অজুহাতে প্রায় আট লক্ষ টাকা যৌতুক নির্যাতন বন্ধ করেনি স্বামী মাসুম । পারিবারিকভাবে কয়েকবার বিচার শালিশ হলেও কোন সমাধান আসেনি।
এ ব্যাপারে অভিযুক্ত মাসুমের সাথে যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হলেও তাকে পাওয়া জায়নি।
এ ব্যাপারে কাচিয়া ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান নিরব হাওলাদার বলেন, পরোকিয়ার সন্দেহে স্বামী মাসুম ও আসমার মধ্যে দীর্ঘ দিন ঝগড়া চলছিল। অভিযোগ পেয়ে পরোকিয়ার ব্যাপারে আমি মাসুমের পরিবারের সদস্যদের জিজ্ঞাসা করে ছিলাম কিন্তু তারা অস্বীকার করেছে।
বোরহানউদ্দিন থানার ওসি বলেন , এ ব্যাপারে  অভিযোগ পেলে ব্যাবস্থা নেয়া হবে।