অনলাইন সংস্করণ | ভোলা, মঙ্গলবার, ২৩শে এপ্রিল ২০২৪ | ৯ই বৈশাখ ১৪৩১


লালমোহনে প্রতিপক্ষের হামলায় হাসপাতাল বেডে কাতরাচ্ছেন বৃদ্ধ


লালমোহন প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ১৬ই মার্চ ২০২৪ বিকাল ০৩:৩৯

remove_red_eye

২৫

লালমোহন প্রতিনিধি : ভোলার লালমোহন উপজেলায় প্রতিপক্ষের হামলায় গুরুতর আহত হয়ে দুইদিন ধরে হাসপাতাল বেডে কাতরাচ্ছেন মো. ইয়াসিন নামে ৬০ বছর বয়সী এক বৃদ্ধ। তিনি উপজেলার চরভূতা ইউনিয়নের ৯ নম্বর ওয়ার্ডের জনতা বাজার এলাকার পাঞ্জত আলী মিস্ত্রি বাড়ির বাসিন্দা। এ ঘটনায় বৃহস্পতিবার রাতে লালমোহন থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে।
জানা যায়, গত বুধবার বিকেলে স্থানীয় স্কুল মাঠে ছাগল চড়াতে যান ইয়াসিন মিয়ার স্ত্রী শাহিনূর বেগম। ওইদিন আসরের আজানের কিছু সময় পর ওই স্কুল মাঠ থেকে ছাগল নিয়ে বাড়ি ফিরছিলেন শাহিনূর বেগম। এ সময় তার পথরোধ করে স্কুল মাঠে ছাগল চড়ানোর কারণে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করেন প্রতিবেশী মনির মাল। পরে বিষয়টি তিনি স্থানীয় ইউপি সদস্যকে জানান। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে  রাতে মনির মালের নেতৃত্বে আত্মীয়-স্বজনদের নিয়ে ইয়াসিন মিয়ার বাড়িতে গিয়ে স্ত্রী শাহিনূর বেগমসহ তার ছেলে-মেয়ের ওপর হামলা চালান। রাতে মোটরসাইকেলযোগে ইয়াসিন মিয়া বাড়ি ফেরার সময় বাড়ির দরজায় একা পেয়ে মোটরসাইকেল থামিয়ে রড ও লাঠি নিয়ে তার ওপর হামলা চালায় মনির মাল ও তার ছেলে জোবায়ের। ওই হামলায় মাথায়, হাতে, পিঠে ও পায়ে মারাত্মকভাবে জখম হন বৃদ্ধ ইয়াসিন। পরে প্রতিবেশীরা তাকে উদ্ধার করে লালমোহন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করান। বর্তমানে দুইদিন ধরে সেখানে চিকিৎসাধীন তিনি। এ ঘটনায় বৃহস্পতিবার রাতে আহত বৃদ্ধ ইয়াসিনের প্রথম স্ত্রী জাহানার বেগম লালমোহন থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন।
অভিযোগের বিষয়ে মনির মাল বলেন, বাড়িতে মহিলাদের মধ্যে ঝগড়া হয়েছে। ইয়াসিনের স্ত্রী আমার দুই মেয়ের ওপর হামলা চালিয়েছে। বিষয়টি তাকে জানানোর পরেও তিনি কোনো পদক্ষেপ নেননি। যার জন্য তাকে লাঠি দিয়ে কয়েকটি আঘাত করেছি।
চরভূতা ইউনিয়নের ৯ নম্বর ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য মো. আলমগীর জানান, ঘটনার দিন দুই পক্ষই আমার কাছে এসেছিল। আমি দুই পক্ষকেই বলেছি শান্ত থাকতে। তবে রাতে ইয়াসিন মিয়া বাড়িতে ফেরার সময় তার ওপর মনির মাল অতর্কিতভাবে হামলা চালায়। ওই হামলায় গুরুতর আহত হয়ে লালমোহন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন রয়েছেন ইয়াসিন মিয়া। আমি তার খোঁজ-খবর নিয়েছি। এ ঘটনায় একটি সুষ্ঠু ফয়সালার চেষ্টা করছি।
এ বিষয়ে লালমোহন থানার এসআই মো. আবু ইউসুফ বলেন, হামলার ঘটনায় একটি লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।