অনলাইন সংস্করণ | ভোলা, মঙ্গলবার, ২৩শে এপ্রিল ২০২৪ | ৯ই বৈশাখ ১৪৩১


দাম কমলেও মুরগিতে ‘অস্বস্তি’


বাংলার কণ্ঠ ডেস্ক

প্রকাশিত: ১৫ই মার্চ ২০২৪ বিকাল ০৪:৪৭

remove_red_eye

৯৩

সপ্তাহ ব্যবধানে মুরগির দাম কেজিতে ১০ থেকে ২০ টাকা কমেছে। কমেছে পেঁয়াজের দামও।

রমজানের প্রথম শুক্রবার (১৫ মার্চ) রাজধানীর তালতলা ও শেওড়াপাড়া বাজার ঘুরে ক্রেতা ও বিক্রেতাদের সঙ্গে কথা বলে এসব তথ্য জানা গেছে।

 

তবে ক্রেতারা বলছেন, মুরগির দাম কমলেও তারা স্বস্তিতে নেই। কারণ কম ওজনের মুরগি বাজারে তেমন পাওয়া যাচ্ছে না। কিনতে গেলে বড় মুরগি কিনতে হচ্ছে। ফলে প্রয়োজন না থাকার পরও অনেককে বেশি ওজনের মুরগি কিনতে হচ্ছে। ওজন বেশি হলে দামও বেশি আসে। আর কম ওজনের মুরগি পাওয়া গেলেও স্বাভাবিকের চেয়ে দাম কিছুটা বেশি।  

বাজার ঘুরে দেখা গেছে, ২০৫ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে ব্রয়লার মুরগি, যা গত সপ্তাহে ২২৫ টাকা কেজি দরে বিক্রি হয়েছিল, সোনালি ৩২০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। গত সপ্তাহে বিক্রি হয়েছিল ৩৪০ টাকা দরে। সোনালি হাইব্রিড ৩০০ টাকা, দেশি মুরগি ৬৮০ থেকে ৭০০ টাকা কেজি, লেয়ার মুরগি ২৯৫ টাকা এবং সাদা লেয়ার ২৭০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে।

পাইকারি বাজারে দাম কমার কারণে খুচরা বাজারে দাম কমেছে বলে জানান শেওড়াপাড়া বাজারের মুরগি বিক্রেতা রাকিব। তবে দামের কারণে বিক্রি আগের তুলনায় অনেকটা কমেছে।

বিক্রেতাদের ওপর দোষ চাপিয়ে শেওড়াপাড়া বাজারে কেনাকাটা করতে আসা বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে কর্মরত আরিফুল ইসলাম বলেন, রমজান মাসে সাহরি ও ইফতারের সময় মানুষ একটু ভালো খাবারের আয়োজন করে। আর এ সুযোগ কাজে লাগিয়ে ব্যবসায়ীরা অতি মুনাফা করছেন।  

তিনি বাংলানিউজকে বলেন, পরিবারের চাহিদার অর্ধেকও কিনতে পারছি না। বাজারে মনিটরিং না থাকায় যে যার মতো করে দাম বাড়িয়ে পণ্য বিক্রি করছেন। আমরা ক্রেতারা ব্যবসায়ীদের কাছে অসহায় হয়ে গেছি।

বাজারগুলোতে এক ডজন লাল ডিম ১৪০ টাকা, হাঁসের ডিম ২২০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। দেশি মুরগির ডিমের হালি ৮৫ টাকায় বিক্রি করতে দেখা গেছে।  

বাজারে গরুর মাংসের কেজি ৭৫০ টাকা এবং খাসির মাংসের কেজি ১ হাজার ৫০-১ হাজার ১০০ টাকা।  

ভারতীয় পেঁয়াজ আমদানির কারণে সপ্তাহ ব্যবধানে দাম কিছুটা কমেছে। দেশি পেঁয়াজ ৮০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। পুরোনো দেশি পেঁয়াজ ১০০ টাকা এবং ভারতীয় পেঁয়াজ ৭০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে।  

বাজার ঘুরে দেখা গেছে, গ্রীষ্মকালীন সবজি কচুরমুখীর কেজি ১০০ টাকা, বেগুন ৬০ থেকে ৮০ টাকা, করলা ৮০ টাকা, ঢেঁড়স ৮০ টাকা, বরবটি ১৪০ টাকায়, শসা ১০০ টাকা, খিরা ৬০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। লাউ প্রতিটি বিক্রি হচ্ছে ৬০ থেকে ৮০ টাকা দরে। পেঁপে প্রতি কেজি ৫০ টাকা, ধুন্দুল ৮০ টাকা, চিচিঙ্গা ৮০ টাকা, ঝিঙ্গা ১০০ টাকা, পটল ১০০ টাকা ও সজনে ২৪০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে।

বাজারে প্রতি কেজি মুলা ৪০ টাকা, শিমের কেজি ৪০ থেকে ৫০ টাকা, ফুলকপি প্রতিটি ৪০ থেকে ৫০ টাকা, বাঁধাকপি প্রতিটি ৪০ থেকে ৫০ টাকা, ব্রোকলি প্রতিটি ৩০ টাকা। পাকা টমেটো প্রকারভেদে ৪০ থেকে ৬০ টাকা কেজি, গাজর ৩০ থেকে ৪০ টাকা এবং আলু ৩৫ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে।  

লেবুর হালি ৪০ থেকে ৮০ টাকা, ধনে পাতার কেজি ২০০ থেকে ২২০ টাকা, কলার হালি ৪০ টাকা, মিষ্টি কুমড়ার কেজি ৪০ থেকে ৫০ টাকা এবং কাঁচা মরিচের কেজি ৮০ থেকে ১২০ টাকা। লাল শাকের আঁটি ১৫ টাকা, লাউ শাক ৩০ টাকা, মুলা শাক ১৫ টাকা, পালং শাক ১০ থেকে ১৫ টাকা, কলমি শাক ১০ টাকা।

৪০০ গ্রাম ওজনের ইলিশ মাছের কেজি ৯০০ টাকা, চাষের শিংয়ের কেজি (আকারভেদে)  ৩৫০ থেকে ৬০০ টাকা, রুইয়ের দাম কেজিতে বেড়ে (আকারভেদে) ৪০০ থেকে ৫৫০ টাকা, মাগুর ৭০০ থেকে ১ হাজার টাকা, মৃগেল ৩০০ থেকে ৪৫০ টাকা, পাঙাশ ২০০ থেকে ২২০ টাকা, চিংড়ি ৮০০ থেকে ১ হাজার ২০০ টাকা, বোয়াল ৫০০ থেকে ৯০০ টাকা, কাতল ৪০০ থেকে ৬০০ টাকা, পোয়া ৪০০ থেকে ৪৫০ টাকা, পাবদা ৪০০ থেকে ৪৫০ টাকা, তেলাপিয়া ২২০ টাকা, কই ২২০ থেকে ২৪০ টাকা, মলা ৫০০ টাকা, বাতাসি টেংরা ১ হাজার ৬০০ টাকা, টেংরা ৬০০ থেকে ৮০০ টাকা, কাচকি ৬০০ টাকায়, পাঁচমিশালি ২২০ টাকা, রূপচাঁদা ১ হাজার ২০০ টাকা, বাইম ১ হাজার ২০০ থেকে ১ হাজার ৫০০ টাকা, দেশি কই ১ হাজার টাকা, মেনি ৭০০ টাকা, শোল মাছ ৬০০ থেকে ১ হাজার টাকা, আইড় ৬০০ থেকে ৯০০ টাকা, বেলে ৭০০ টাকা এবং কাইকলা বা কাইক্ক্যা ৬০০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে।

 

সুত্র বাংলা নিউজ