বাংলার কণ্ঠ প্রতিবেদক ।। পূর্ব বাংলা সর্বহারা পার্টির নাম দিয়ে আজ শনিবার মোবাইল ফোনে এক ব্যক্তি ভোলা সরকারি শেখ ফজিলাতুন্নেসা মহিলা কলেজের অধ্যক্ষসহ ৭ শিক্ষককের কাছে চাঁদা দাবী করেছে। দাবীকৃত চাঁদা না দিলে পরিবারের সদস্যসহ শিক্ষকদের হত্যা করা হবে বলে হুমকি দেয়া হয়েছে। এতে করে শিক্ষকদের মাঝে আতংক ছড়িয়ে পড়েছে।
ভোলা সরকারি শেখ ফজিলাতুন্নেসা মহিলা কলেজের সহকারী অধ্যাপক হুমায়ুন কবির জানান, শনিবার বেলা ১১ টার দিকে তাদের কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর মো: ইসলাফিলকে পূর্ব বাংলা সর্বহারা পার্টির নেতা মনির নামে এক ব্যক্তি ০১৯৪৭-৯০৮৯৯৮ নাম্বারের মোবাইল দিয়ে ২৫ হাজার টাকা তাদের পার্টির জন্য চাঁদা দাবী করেন। ১০ মিনিটের মধ্যে দাবীকৃত টাকা বিকালের ০১৯৮৮-১৩৪১০২ নাম্বারে পাঠানোর জন্য হুমকি দেন। তা না হলে তার ও পরিবারের সদস্যদের ক্ষতি করা হবে। এর পর ইংরেজি বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক এনায়েত উল্লাহকেও একই নাম্বার থেকে ফোন দিয়ে ৩০ হাজার টাকা চাঁদা দাবী করে। ওই টাকা না দিয়ে তার ও পরিবারের সদস্যদের হত্যা করা হবে বলে হুমকি দেয়। এভাবে ওই কলেজের শিক্ষক সহকারি অধ্যাপক হুমায়ুন কবির,ফরিদুজ্জামান,স্মৃতি রানী সাহা,হারুন অর রশিদ,সালাউদ্দিন আহমেদকে একই নাম্বার থেকে হুমকি দেয়া হয়। এ ঘটনায় শিক্ষকদের মাঝে আতংক ও উদ্বেগ দেখা দিলে শিক্ষকদের পক্ষ থেকে সহকারি অধ্যাপক মো: ফরিদুজ্জামান বাদী হয়ে ভোলা মডেল থানায় একটি সাধারন ডায়েরী করেন। যার নং ১১০ তারিখ ৩.৮.১৯ইং।
ভোলা পুলিশ সুপার সরকার মোহাম্মদ কায়সার জানান, প্রতি বছর ঈদ আসলে এ ধরনের চক্র বিভিন্ন মানুষকে ফোন করে টাকা দাবী করে এবং হুমকী দেয়।
তিনি আরো জানান, গত মাসে ভকেশনালের আরো দুই শিক্ষককে একই ধরনের হুমকী দিয়েছিল এরকমের একটি চক্র। এখন আবার ভোলার সরকারি শেখ ফজিলাতুন্নেসা মহিলা কলেজের ৭ জন শিক্ষককে একই ধরনের হুমকী দিয়েছে। আমরা ওই চক্রটিকে আটকের চেষ্টা করছি।
এ ব্যাপারে ভোলা মডেল থানার ওসি ছগির মিঞা জানান, যে ব্যক্তি মোবাইলে হুমকি দিয়ে তাকে আটকের জন্য মোবাইল ট্রাকিং করা সহ প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হচ্ছে।
জেএস/০৩ আগস্ট