বাংলার কণ্ঠ প্রতিবেদক || ভোলায় জমি দখল নেওয়ার জন্য হত্যার উদ্যেশে প্রবাসী পরিবারের উপর চালানোর অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় ওই প্রবাসী পরিবারের মোঃ ছালাউদ্দিন (২৬) নামে একজন মারাক্তক আহত হয়েছে। তিনি ভোলা সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। এ ঘটনায় আহতের পরিবার থানায় মামলা করলে হামলাকারীও পাল্টা মামলা দায়ের করে। এতে দু’ গ্রæপের মধ্যে উত্তেজনা বিরাজ করলে। ঘটনাটি ভোলার বোরহানউদ্দিন উপজেলার টবগী ইউনিয়নের উদয়পুর রাস্তার মাথা এলাকায়।
আহতের বড় ভাই মোঃ নুরে আলম জানান, ২০০৩ সালে দিকে একই এলাকার জেবল হক কালু কাছ থেকে ঘরসহ টবগী মৌজার ৮ শতাংশ জমি ক্রয় করে ওই এলাকার ইউসুফ আলী। তার টাকার প্রয়োজন হলে ওই জমি বিক্রির ইচ্ছা প্রকাশ করলে আমার বড় পিতা মোঃ মফিজুল ইসলাম ও আমার প্রবাসী দুই ভাই আব্দুল মান্নান ও মিজানুর রহমান এ বছর মার্চ মাসে ৫ লাখ টাকা দিকে ঘরসহ ৫ শতাংশ জমি করে করে। এরপর একই এলাকার আইয়ুব রুমী ওই জমি দখল করতে আমাদের হুমকী দিয়ে আসছে। তারপর ওই জমির ঘরে তালা ঝুলিয়ে দেয়। বিষয়টি এলাকার গণমাণ্যদের জানালে কাউকে শালিশ মানেনি আইয়ুব রুমী।
এ ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে মঙ্গলবার (৩ সেপ্টেম্বর) সন্ধ্যার দিকে আমারদের পরিবারকে ভয় দেখাতে আমার ছোট ভাইকে বাড়ির সামনে ধারালো অস্ত্র ও রট দিয়ে হত্যা করার জন্য আইয়ুব রুমীসহ তার বাহিনী লোকমান, নোমান, সোহরাব ও আরজুম হামলা চালায়। পরে স্থানীয়দের সহযোগীতায় তাকে উদ্ধার করে প্রথমে বোরহানউদ্দিন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করলে উন্নত চিকিৎসার জন্য ভোলা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এ ঘটনায় বুধবার (৪ সেপ্টেম্বর) আমরা হামলাকারীদের বিরুদ্ধে বোরহানউদ্দিন থানায় মামলা দায়ের করি।
মামলা করার পর হামলাকারীরা আমার হত্যার হুমকী দিয়ে আসছে। এবং আমাদের উপর মিথ্যা মামলা দায়ের করেছে। আমরা খুব আতঙ্কে জীবন কাটাচ্ছি।
অভিযুক্ত আইয়ুব রুমী জানান, আমি ১৯৮৩ সালে ওই মৌজার একই মালিকের কাছ থেকে ১৮ শতাংশ জমি ক্রয় করেছি। আমার এখনও ৫ শতাংশ জমি কম রয়েছে। তাই ওই জমির ঘরে তালা বদ্ধ করেছি। এ নিয়ে প্রবাসী পরিবার আমার সাথে বারাবারি করায় তাকে মারধর করেছি। এবং তাদের বিরুদ্ধে শনিবার (০৮ সেপ্টেম্বর) মামলা করেছি।
বোরহানউদ্দিন থানার ওসি মোঃ এনামুল হক জানান, দুই গ্রæপই মামলা দায়ের করেছে । আমরা মামলা নেয়েছি। বিষয়টি তদন্ত চলছে।