তজুমদ্দিন প্রতিনিধি ।। ভোলার তজুমদ্দিনে পার্থ মজুমদার (০৮) নামে এক শিশুর শিশুর লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। হিন্দু ধর্মীও দেবী মনষা কোন দোষ পাওয়ায় ওই শিশুর প্রাণ নিয়েছে বলে নিহতের পরিবারের দাবী করেছেন বলে পুলিশ জানান। এদিকে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য লাশ ভোলা মর্গে প্রেরণ করেন। এ ঘটনায় পুলিশ তজুমদ্দিন থানায় একটি অপমৃত্যুর মামলা দায়ের করেন। তবে এ ঘটনায় পুলিশ কাউকে আটক করেনি।

থানা পুলিশ সুত্রে জানা যায়, উপজেলার শম্ভুপুর ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ডের শিবপুর গ্রামের ডাক্তার বাড়ির বিকাশ চন্দ্র মজুমদারের স্ত্রী দীপা রাণী মজুমদার শুক্রবার দুপুরের খাবার শেষে তার দুই সন্তান নিয়ে ঘুমাতে যায়। এক পর্যায়ে বড় ছেলে পার্থ মজুমদার (৮) হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়লে ভগবানের কৃপা পাওয়ার জন্য তাকে পাশ্ববর্তী মন্দিরে নিয়ে যায় তার মা দীপা রাণী মজুমদার। পরে সে সন্ধ্যার দিকে মারা যায়। রাতে সংবাদ পেয়ে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে। পরে লাশের ময়না তদন্তের জন্য ভোলা মর্গে প্রেরণ করেন। এ ঘটনায় পুলিশ বাদী হয়ে তজুমদ্দিন থানায় একটি অপমৃত্যুর মামলা দায়ের করেন। মামলা নং ০৪। নিহতের গলার দ্ইু পাশে দাগের চিহ্ন রয়েছে বলেও জানান পুলিশ।

তজুমদ্দিন থানার অফিসার ইনচার্জ ফারুক আহম্মদ বলেন, খবর পেয়ে আমরা ঘটনাস্থলে গিয়ে লাশ উদ্ধার করেছি। নিহতের পরিবারের দাবী মনষা বেদী তাদের কোন দোষ পাওয়ায় তাদের ছেলে প্রাণ নিয়েছে।
নিহতের লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য ভোলা মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে। ময়না তদন্তের রিপোর্ট না পাওয়া পর্যন্ত বলা যাচ্ছেনা এটি হত্যা না অন্য কিছু।

জেএস/০৩ আগস্ট